কাজীপুরের বাজার রাস্তায় ধানের চারা রোপণ

প্রকাশ : ১১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার ঐহিত্যবাহী সোনামুখী বাজার ও হাটে প্রবেশের মূল রাস্তায় ব্যবসায়ীরা ধানের চারা রোপণ করে অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছেন। গতকাল শুক্রবার ব্যবসায়ীরা হাটের রাস্তার মন্দির সংলগ্ন স্থানে এ ধানের চারা রোপণ করেন।

ব্যবসায়ীরা জানান, এককালের বন্দরনগরী সোনামুখী হাটটি এখনো কাজিপুরের মধ্যে সবচেয়ে বড় হাট। এই হাটকে কেন্দ্র করে সোনালী ব্যাংক, গ্রামীণ ব্যাংক, ডাচ বাংলা এজেন্ট ব্যাংক, ইউনিয়ন ভূমি অফিস, শিখা সার্বজনিন দুর্গা মন্দিরসহ বহু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। সপ্তাহে দুইদিন হাটবারে প্রায় কয়েক হাজার লোকের সমাগম ঘটে। এই বাজার ও হাটে প্রবেশের পশ্চিমাংশের মূল রাস্তাটি কয়েক বছর ধরে বর্ষাকালে পানি আটকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। কারণ নদীমুখে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করায় পানি নিষ্কাশনের আর কোনো ব্যবস্থা নেই। নেই কোনো ড্রেনেজ সিস্টেম। ফলে বর্ষায় ওই রাস্তা হাটু পরিমাণ পানিতে তলিয়ে যায়। জনসাধারণকে প্রয়োজনে পানি ও কাদা মাড়িয়ে হাটের ভেতরে প্রবেশ করতে হয়।

বিষয়টি রসানামুখী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান রাশেদ কবির চান্দু এবং বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান আলী খানকে সরেজমিনে নিয়ে এসে ব্যবসায়ীরা দেখিয়েছেন। কিন্তু কোনো সুরাহা হয়নি।

শিখা মন্দিরের সেবক উত্তম কর্মকার জানান, পানি না শুকালে সামনের বড় পূজা করা আমাদের জন্য কষ্টকর হয়ে যাবে। ওষুধ ব্যবসায়ী সামিদুল ইসলাম জানান, সামনে কোরবানির ঈদ। এ সময় দোকানের সামনের রাস্তায় পানি জমে থাকায় লোকজন চলাচল করতে না পারায় আমাদের ব্যবসায় দারুণ ক্ষতি হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ অতি দ্রুত এই রাস্তার পাশে ড্রেন নির্মাণ করে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করবেন এমন দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ী ও এই রাস্তায় চলাচলরত হাটুরেরা।

এ ব্যাপারে ইউএনও মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, সংশ্লিষ্ট দফতরে জানিয়েছি। আশা করছি অচিরেই এলাকাবাসী সুফল পাবে।

 

"