আমতলী সরকারি কলেজ

২৫ বছর ধরে বন্ধ ছাত্র সংসদ নির্বাচন

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি

বরগুনার আমতলী সরকারি কলেজে দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে নেই ছাত্র সংসদের কোন কার্যক্রম। এতে সাধারন ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারছেন না। নানা কারনে নির্বাচন নিয়ে মুখ খোলার সাহস নেই শিক্ষার্থীদের। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, ছাত্র প্রতিনিধিত্ব না থাকায় নানাভাবে বঞ্চিত হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। অভিযোগ রয়েছে, কলেজ কর্তৃপক্ষ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ও ম্যানেজিং কমিটির দোহাই দিয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দেয়নি। প্রথম আমতলী কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচন হয়েছিল ১৯৯২ সালে।

১৯৯৪ সালে ছাত্র সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর আর আলোর মুখ দেখেনি আমতলী ডিগ্রী কলেজ ছাত্র সংসদ (আকসু)। ২৫ বছর ছাত্র সংসদ না থাকায় কলেজ থেকে ছাত্র নেতৃত্ব বিকশিত হচ্ছেনা বলে সাধারন ছাত্র ছাত্রীরা জানান।

ফরম ফিলআপ ও ভর্তি এলেই বাড়তি ফির খড়গ চাপিয়ে দেয়া হয়। অথচ এ বিষয়ে মুখ খুলতে পারছেন না শিক্ষার্থীরা।

উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা অলি উল্যাহ বলেন, ছাত্র সংসদ না থাকলে ছাত্রদের অধিকার আদায় করার সম্ভব নয়। উপজেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতা আব্দুল মতিন খান বলেন শিক্ষার্থীসহ শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে ছাত্রলীগ। ছাত্র সংসদ থাকলে সে কাজগুলো আরও সুন্দরভাবে করা সম্ভব। উপজেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি এ,বি,এম জাকারিয়া বলেন আমতলী কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচন সময়ের দাবী ।

আমতলী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পৌর কাউন্সিলর মো. জাহিদুল ইসলাম তালুকদার জুয়েল বলেন, ছাত্র সংসদ নির্বাচন না হওয়ার কারণে নেতা সৃষ্টি হচ্ছে না।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. জালাল উদ্দিন ফকির বলেন, কলেজে ছাত্র সংসদ থাকা প্রয়োজন। ছাত্র সংসদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের ন্যায্য দাবী আদায় করতে পারেন।

আমতলী সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) গাজী আব্দুল মান্নান বলেন, গত ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে আমতলী কলেজ জাতীয় করন হয়। এর পূর্বে ম্যানেজিং কমিটি কলেজ পরিচালনা করতো। এখন পরিচালনা করছেন একাডেমিক কাউ¯িœল। এখন যদি প্রশাসন, ছাএ সংগঠনগলো এবং কলেজের একাডেমিক কাউন্সিল অনুমোদন দেয় তবে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দেয়া সম্ভব।

আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মো. মতিয়ার রহমান বলেন, কলেজ ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যদি ছাত্র সংসদ নির্বাচন না থাকে তা হলে শিক্ষার্থীরা তাদের অধিকার আদায়ে বঞ্চিত হন।

আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জি এম দেলওয়ার হোসেন বলেন, ছাত্র সংসদ কার্যকর না থাকায় শিক্ষার্থীরা তাদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এবং ছাত্র নেতৃত্ব তৈরীতে বড় বাধাও বলে মনে করেন তিনি।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. মোখলেছুর রহমান বলেন, সরকারী বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাধারন ছাত্র-ছাত্রীরা অবিলম্বে আমতলী সরকারী কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচন দেয়ার দাবী জানান।

 

"