প্রতিবাদ করায় ছাত্রদের ‘ঝামেলায়’ পড়ার হুমকি শিক্ষকের

কালকিনির ডি কে আইডিয়াল কলেজ

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি

মাদারীপুর কালকিনি উপজেলার ডি কে আইডিয়াল সৈয়দ আতাহার আলী একাডেমি অ্যান্ড বিশ^বিদ্যালয় কলেজের হল সুপারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগে প্রতিবাদী অনশন করেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল বুধবার সকাল ১০টার দিকে ২ ঘণ্টা অনশন করে তারা। এ সময় শিক্ষার্থীরা টাকার বিনিময় আবাসিক হল রুম বদলের অভিযোগ করে এবং ‘একদফা একদাবি’ ও ‘আমরা হোস্টলে যেখানে ছিলাম সেখানেই থাকব’ সেøাগান দেয়। পরে কলেজে অধ্যক্ষের আশ^াসে বিকেল পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করা হয়।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, প্রতিবাদ করায় হল সুপার ওবাইদুর রহমান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ‘ঝামেলায়’ পড়াসহ বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দেন এবং লিফলেট ছিনিয়ে নিয়ে যান।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, কালকিনি উপজেলার কলেজের শিক্ষক ও হল সুপার ওবাইদুর রহমান কোনো কিছু না জানিয়ে আগে থেকে আবাসিক হোস্টেলর শিক্ষার্থীদের নামিয়ে নতুন শিক্ষার্থীদের হলে থাকার নির্দেশ দেন। এতে হলে থাকা ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বুধবার সকাল থেকে ‘এক দফা এক দাবি’ আন্দোলন শুরু করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমাদের কলেজের হল সুপার ওবাইদুর রহমান স্যার টাকার বিনিময় আমাদের থাকা আবাসিক রুম অন্য ছাত্রদের সিট বরাদ্দ দিয়ে দেন। আমরা এটা কখনোই মানব না।’ শিক্ষার্থীরা আরো জানান, ‘ওবাইদুর স্যার আমাদের বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দিয়ে বলেন, কোঠা আনন্দোলন করতে গিয়ে ছাত্ররা যে ঝামেলায় পরেছে, বেশি বাড়াবাড়ি করলে তোমাদেরও সেই ঝামেলায় পড়তে হবে।’

তবে অভিযুক্ত হল সুপার ওবাইদুর রহমান বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ সত্য নয়, ভিত্তিহীন। আমি কোনো ছাত্রদের কাছ থেকে কোনো ধরনের সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করিনি। তবে ভালো ছাত্রদের ভালো সিট দিতে হবে, তাই তাদের সিট চেঞ্জ করে দেওয়া হয়েছে।’ জানতে চাইলে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মমতাজ বেগম বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগ সত্য নয়। কারণ, ওই আবাসিক হোস্টেলের বেশির ভাগ ছাত্ররা বিড়ি-সিগারেট খায় ও মোবাইর ফোন ব্যবহার করে, যা অনৈতিক কাজকর্ম। তাই তালমিল করে এক জায়গার ছাত্র অন্য জায়গায় স্থানান্তর করা হয়েছে, এর বেশি কিছু নয়।’

"