ভিজিএফের চাল বিতরণ

অনিয়মে ম্লান দুস্থদের ঈদ

প্রকাশ : ১৫ জুন ২০১৮, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া বিশেষ খাদ্য সহায়তা প্রকল্পের (ভিজিএফ) চাল বিতরণের অনিয়মের ফলে ম্লান হয়ে গেছে অনেক দুস্থের আনন্দ। চাল বিতরণে দায়িত্বে থাকা জনপ্রতিনিধি ও দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের গাফিলতি, দুর্নীতির কারণে এই অবস্থা তৈরি হয়েছে। কোনো কোনো স্থানীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে উঠেছে চাল আত্মসাৎ ও কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগ। কোথাও কোথাও উদ্ধার করা হয়েছে এই চাল। গাইবান্ধা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ এবং যশোরের বেনাপোল, জামালপুরের ইসলামপুর ও নওগাঁর রানীনগর উপজেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরÑ

গাইবান্ধা : জেলার সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের জন্য বরাদ্দকৃত চাল থেকে ৫০ কেজি ওজনের ১৭৬ বস্তা চাল স্থানীয় ব্যবসায়ী আজাদুল ইসলামের বাড়ির চারটি ঘর থেকে জব্দ করা হয়েছে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত বুধবার পরিচালতি এ অভিযানের সময় প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে আজাদুল ইসলাম পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় সাদুল্যাপুর থানায় ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম ও ব্যবসায়ী আজাদুল ইসলামসহ কয়েকজনের নামে মামলা করা হয়েছে। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সঞ্জয় কুমার মহন্ত এই তথ্য জানিয়েছেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ধাপেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে ভিজিএফের চাল বিতরণে ওজনে কম দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। প্রতি কার্ডে ১০ কেজি করে চাল দেয়ার কথা থাকলেও ওজনে সাড়ে ৯ কেজি করে বিতরণ করা হচ্ছে। ওজনে আধা কেজি চাল কম দেওয়ার বিষয়ে বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান-সচিবদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার দফতর থেকে নির্দেশনা মোতাবেক চাল বিতরণ করা হয়ে থাকে। এ প্রসঙ্গে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, খাদ্য গুদাম থেকে সরবরাহ নেয়ার পর ইউনিয়ন পরিষদের গুদামে নেয়ার পরে বিতরণের সময় কিছুটা ঘাটতি হয়। ফলে ঘাটতি পূরণের জন্যই কিছু চাল ওজনে কম দিতে হয়।

কিশোরগঞ্জ : জেলার নিকলী উপজেলায় জারইতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামরুল ইসলাম মানিকের বিরুদ্ধে ভিজিএফের চাল আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ পরিস্থিতিতে বিক্ষুব্ধ ৩০০ দুস্থকে নিজ উদ্যোগে চাল কিনে দিয়েছেন সংরক্ষিত নারী সদস্য জেসমিন আরা বিউটি। গত মঙ্গলবার ইউনিয়নের ১ হাজার ৩২১ দুস্থ পরিবারের মধ্যে ভিজিএফের চাল বিতরণের সময় এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, অনুমোদিত ওজন যন্ত্রের বদলে প্লাস্টিকের বালতি দিয়ে চাল দেওয়া হচ্ছিল। এ সময় চাল কম দেওয়ার অভিযোগে বিক্ষুব্ধ দুস্থদের সঙ্গে ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩ সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য জেসমিন আরা বিউটি প্রতিবাদ করলে চেয়ারম্যান মো. কামরুল ইসলাম মানিক তাদের ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বের করে দেন। জেসমিন আরা বিউটি বলেন, চেয়ারম্যান চক্রটি দীর্ঘদিন ধরেই অসহায়দের বিভিন্ন সুবিধা আত্মসাৎ করছেন।

বেনাপোল (যশোর) : যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার বাহাদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজানের বিরুদ্ধে ভিজিএফের চাল বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে ইউনিয়নের ৯ জন ইউপি সদস্য শার্শা ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে জানা যায়, গত ১০ জুন ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান ভিজিএফের চাল খাদ্য গুদাম থেকে ইউনিয়ন পরিষদে পাঠানোর ২৪ বস্তা কম পাওয়া যায়। জানতে চাইলে চেয়ারম্যান মিজান তাদের বলেন, পরিবহন খরচ বাবদ ২৪ বস্তা চাল বিক্রি করা হয়েছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তারা।

ইসলামপুর (জামালপুর) : জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলা পাথর্শী ইউনিয়নে দুস্থদের ভিজিএফের চাল ২ কেজি করে ওজনে কম দেওয়াসহ মাস্টাররোলে ভুয়া টিপসই দিয়ে প্রায় ১০০ মণ চাল কালোবাজারে পাচারের অভিযোগ উঠেছে। নাম প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানায়, গত বুধবার সকালে চেয়ারম্যান ইফতেখার আলম বাবুল পরিষদে ঢুকেই তার কালোবাজারে বিক্রির স্লিপের প্রায় ১০০ মণ চাল বস্তা বদল করে ৪টি অটো দিয়ে পাচার করেন। এ ব্যাপারে পাথর্শী ইউপি চেয়ারম্যান ইফতেখার আলম বাবুলের বক্তব্য চাইলে তিনি সাংবাদিকদের দেখে নেওয়ারও হুমকি দেন।

অন্যদিকে ইসলামপুরের চিনাডুলি ইউপি সচিব বজলুর রহমান ছানার বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুস ছালামের স্বাক্ষর জাল করে ভিজিএফের ৩০০ ভুয়া স্লিপ বানানোর ৩ হাজার কেজি চাল আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগ করেছেন চিনাডুলী ইউপি চেয়ারম্যান আবদুস ছালাম ও তার মেম্বাররা। তবে অভিযুক্ত সচিব বজলুর রহমান মাত্র ৫০টি স্লিপ জালিয়াতির মাধ্যমে ৫০০ কেজি চাল আত্মসাতের কথা স্বীকার করেছেন।

রানীনগর (নওগাঁ) : নওগাঁর রানীনগরে একডালা ইউনিয়নে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে গতকাল বৃহস্পতিবার ভিজিএফের বিতরণ না হওয়া ৪০ বস্তা চাল সুবিধাভোগীদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। জানা যায়, ঈদুল ফিতরের ৪৫০ বস্তা চাল একডালা ইউপি চেয়ারম্যান মো. রেজাউল ইসলাম উত্তোলন করেন। কিন্তু প্রায় শতাধিক সুবিধাভোগীরা আসেনি বলে এই অজুহাতে ৪০ বস্তা চাল ইউনিয়ন অফিসের রেখে দেন চেয়ারম্যান। খবর পেয়ে রানীনগর ইউএনও এবং তদারকি কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ও চাল না পাওয়া দুস্থদের মাঝে বিতরণের নির্দেশ দেন।

অনিয়মের সত্যতা স্বীকার করে রানীনগর ইউএনও সোনিয়া বিনতে তাবিব বলেন, ৪০ বস্তা চাল না পাওয়া সুবিধাভোগীদের মাঝে বৃহস্পতিবার বিতরণের জন্য এবং বিতরণ না হওয়া চালগুলো আমার কাছে জমা দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেছি।

"