দুই দিনেই উঠে যাচ্ছে কোটি টাকার কার্পেটিং

স্থানীয়দের ক্ষোভের মুখে কাজ বন্ধ

প্রকাশ : ১১ জুন ২০১৮, ০০:০০

রাজীবুল হাসান, শ্রীপুর (গাজীপুর)

মাত্র দুই দিন আগে কার্পেটিং করা হয়েছে রাস্তাটি। এর মধ্যেই উঠে যেতে শুরু করেছে পিচ। কোথাও কোথাও নামমাত্র বিটুমিন দিয়ে হয়েছে কাজ। এই অবস্থা গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার ইউনিয়নের রাজেন্দ্রপুর-লোহাগাছিয়া ৪ কিলোমিটার সড়কের। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর (এলজিইডি) আওতাধীন এই আঞ্চলিক সড়কটি সংস্কার করছে রিফাত এন্টারপ্রাইজ নামের এক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে সোয়া ১ কোটি টাকার অধিক।

বিষয়টি নিয়ে গত দুই দিন ধরে সড়ক সংলগ্ন এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। স্থানীয়দের বিক্ষোভের মুখে রাস্তা সংস্কার কাজ আপাতত বন্ধ রয়েছে বলে জানায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

তারপরও নিজেদের কাজের সাফাই করছেন উপজেলা প্রকৌশলী ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। শ্রীপুর উপজেলা প্রকৌশলী সুজায়েত হোসেন বলেন, ‘রাস্তা যে মানের করার কথা ছিল ঠিক সেই মানেরই হয়েছে। সেখানে কেউ কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে পিচ উঠিয়ে আমাদের কাজকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাচ্ছে। আমি নিজেই গতকাল রোববার ওই স্থানে গিয়ে পিচের থিকনেস পরিমাপ করে দেখেছি সব ঠিক আছে।’

এলজিইডি শ্রীপুর অফিস সূত্রে জানা যায়, মোট ৪৮৭৫ মিটার (৪.৮৫ কিলোমিটার) দৈর্ঘ্যজুড়ে সড়ক সংস্কার করা হচ্ছে। এর নির্মাণ ব্যয় ১ কোটি ২৭ লাখ ৮৪ হাজার ৮০০ টাকা। সড়কটিতে ১ ইঞ্চি উচ্চতা দিয়ে পিচ ঢালাই দেওয়া হচ্ছে। এ বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়ে মে মাসে শেষ হওয়ার কথা ছিল। আবহাওয়াজনিত কারণে নির্দিষ্ট সময়ে তা শেষ করা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় সূত্র জানা যায়, রাজেন্দ্রপুর-লোহাগাছিয়া ৪ কিলোমিটার দৈর্র্ঘ্যরে সড়কটির গত বৃহস্পতিবার কাছারিপাড়া অংশে পিচ ঢালাই দেওয়া হয়। কাছারিপাড়ায় দেওয়া পিচ ঢালাই স্থানে স্থানে উঠে যেতে থাকে। এ নিয়ে নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের ওপর চটেছেনও স্থানীয়রা। এলাকাবাসীর বিক্ষোভের মুখে কাজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সেলিম উল্লা সরকারের মালিকানাধীন রিফাত এন্টারপ্রাইজ সাময়িকভাবে বন্ধ রাখতে বাধ্য হন।

কাছারিপাড়া গ্রামের আব্বাস উদ্দিন বলেন, রাস্তাটির তিনটি স্থানে পিচ উঠে যাচ্ছে। কোথাও কোথাও পিচ ফেটেও যাচ্ছে। এ নিয়ে গত শনিবার ও রোববার স্থানীয় শতাধিক মানুষ রাস্তায় জড়ো হয়ে প্রতিবাদ করেন।

আতলড়া গ্রামের ফারুক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘এমন নিম্নমানের কাজ সরকারের অবকাঠামোগত উন্নয়নের ধারাবাহিকতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। অবশ্য রোববার উপজেলা প্রকৌশলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আমরা এখন প্রকৌশলীর সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি।’

এই কাজের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান রিফাত এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী সেলিম উল্লাহ সরকার বলেন, ‘আমাদের কাজের কোনো গাফিলতি হয়নি। বিটুমিন গরম করার সময় হঠাৎ বৃষ্টি পড়ে যায়। এ সময় শ্রমিকরা উত্তপ্ত বিটুমিন দিয়ে ভেজা রাস্তায় কার্পেটিং করে ফেলে। ফলে কয়েক জায়গায় কার্পেটিং উঠে গেছে। আমি যতবার প্রয়োজন ততবার বিটুমিন দিয়ে ঠিক করে দিব।’

"