ভারতীয় পোশাকের দখলে রাজশাহীর ঈদবাজার

থ্রি পিস ‘ফ্লোর টাচ’ বিক্রি হচ্ছে দুই হাজার ৫০০ থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত

প্রকাশ : ০৯ জুন ২০১৮, ০০:০০

সেখ জিয়াউল হক, রাজশাহী প্রতিনিধি

সপ্তাহখানেক পরই ঈদুল ফিতর। ঈদ সামনে চলে আসায় রাজশাহীতে জমে উঠেছে নতুন পোশাকের কেনাকাটা। ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই ভিড় বাড়ছে দোকানগুলোতে। দেশি-বিদেশি নানা কাপড়ের মধ্য থেকে নিজের পছন্দেরটি বেছে নিচ্ছেন ক্রেতারা। এ বছর সিরিয়ালের নামধারী পোশাক না থাকলেও ভারতীয় পোশাকে ছেয়ে আছে রাজশাহীর ঈদবাজার। বাহারী ডিজাইনের কারণে ক্রেতারাও আগ্রহ নিয়ে কিনছেন ভারতীয় পোশাক। গতকাল শুক্রবার রাজশাহীর আরডিএ মার্কেট, জলিল বিশ্বাস মার্কেট, নিউমার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। দোকানিরা জানান, এ বছর সিরিয়ালের নামানুযায়ী কোনো পোশাক না থাকলেও বাজারে কমতি নেই ভারতীয় পোশাকের। আর এ পোশাকগুলোর চাহিদাও অনেক বেশি।

এবার ঈদে মেয়েদের পোশাকগুলোর মধ্যে রয়েছে জিপসি, টপস, ফ্রগ, কোটি, ওয়ান পিস, টু পিস, থ্রি পিস, লেহেঙ্গা, ফ্লোরটাচ, শর্ট টপস, লেডিস প্লাজো, জেগিন্স ইত্যাদি। সর্বনিম্ন এক হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে পোশাকগুলো। আর এই পোশাকগুলোর বেশির ভাগই ভারতীয়।

মা-মারিয়াম ফ্যাশনের মনির হোসেন জানান, এবার ঈদে ‘পাখি’ বা ‘কিরণমালা’র মতো নামধারী কোনো পোশাক আসেনি। তবে প্রজাপতি রাখি, ডালি ক্রেতাদের বিশেষ আকর্ষণ কাড়ছে। এগুলো কোনো বিশেষ পোশাক না। টপস, ফ্রগ, ওয়ান পিস, গাউনের মতো পোশাকের অন্য নাম। আর সবগুলোই ভারতীয়।

দোকানিরা জানান, এবারও ঈদ উপলক্ষে বাজারে ভারতীয় পোশাকের আধিক্য। এ ছাড়াও বাজার দখল করেছে কিছু পাকিস্তানি পোশাকও। আর শাড়ির ক্ষেত্রে এবার দেশিই বিক্রি হচ্ছে বেশি। সব পোশাকের দাম এখন পর্যন্ত সহনশীল আছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

থ্রি পিস কিনতে আসা সাবিনা ইসলাম বলেন, গরমের কথা ভেবে সবার জন্য সুতির মধ্যেই কেনার চেষ্টা করছি। আর যেসব পছন্দ হচ্ছে তার অধিকাংশই ভারতীয়।

নগরীর আরডিএ মার্কেটের লিজা ফ্যাশন হাউসের স্বত্বাধিকারী আয়েশা আক্তার লিজা জানান, এবার ঈদে মেয়েদের পোশাকের ক্ষেত্রে ভারতীয় ‘ওয়ান পিস’ এসেছে। এটি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৫০০ থেকে চার হাজার টাকা পর্যন্ত। থ্রি পিস ‘ফ্লোর টাচ’ বিক্রি হচ্ছে দুই হাজার ৫০০ থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত। মেয়েদের প্লাজো-পাজামা বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৫০০ থেকে আট হাজার টাকায়। এ ছাড়া পাকিস্তানি লোন ৮০০ থেকে দুই হাজার ২০০ এবং দেশি থ্রি পিস ৬৫০ থেকে দুই হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।

নিউমার্কেটের নেক্সট কালেকশনের বিক্রয়কর্মী রানা রহমান জানান, এখানে ছোট মেয়েদের সারারা, পার্টি ফ্রক, স্কার্ট ও ডিভাইডার ও জিপসি এক হাজার ৮০০ থেকে চার হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর ছেলেদের জিন্সের প্যান্ট, শার্ট ও টি-শার্ট বিক্রি হচ্ছে ৬৫০ থেকে এক হাজার টাকায়। তরুণদের জন্য নতুন কিছু গ্যাভার্ডিন প্যান্ট ও শার্টও বাজারে এসেছে। এগুলো সুলভ মূল্যেই বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি।

"