নওগাঁয় পুলিশকে পেটাল মাদক ব্যবসায়ী!

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০১৮, ০০:০০

নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁর মহাদেবপুরে গ্রেফতারী পরোয়ানাভূক্ত আসামি ‘মাদক ব্যবসায়ীকে’ ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন পুলিশের এএসআই রায়হান আলী। গুরুতর আহত রায়হানকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় সাতজনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। গতকাল রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার রাইগাঁ ইউনিয়নের বিরমগ্রামে এ না ঘটে বলে মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান।

আটককৃতরা হলেন, উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের মৃত জমির উদ্দিনের ছেলে আফজাল হোসেন (৬০), স্ত্রী রুবি (৪০), বিরমগ্রামের মৃত হযরত আলীর স্ত্রী রোবিনা বিবি (৪৫), ছেলে হাফিজুল ইসলাম (৩০) ও দেলোয়ার হোসেন (২০), খাইরুল ইসলামের ছেলে সাজু (৩৫), দছির উদ্দিনের ছেলে আসলাম হোসেন (৪৫)।

উপজেলা মাতাজি পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আজিজুর রহমান বলেন, বিরমগ্রামে মৃত হযরত আলীর ছেলে কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি হাবিবুর রহমানকে (৩৩) আটক করতে যায় উপজেলা মাতাজি পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই রায়হান আলীসহ সঙ্গীয় ফোর্স। এ সময় আসামি হাবিবুরকে বাড়ি থেকে আটক করে হ্যান্ডকাপ লাগিয়ে নিয়ে আসার সময় হাতের কাছে হাউসা পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে আঘাত করে। হাউসার আঘাতে এএসআই রায়হান আলীকে আহত হলে আসামি হাবিবুর হ্যান্ডকাপ পরিহিত অবস্থায় পালিয়ে যায়। এতে এএসআই রায়হান আলীর বাম হাতের অনামিকা ও কনিষ্ঠা আঙ্গুলের রগসহ কেটে ঝুলে যায়। সংবাদ পেয়ে মহাদেবপুর থানার অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতবস্থায় এএসআই রায়হান আলীকে উদ্ধার নওগাঁ সদর হাসপাতালে অর্থোপেডিক বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। রাতেই থানা পুলিশ বিভিন্নস্থান অভিযান চালিয়ে সাতজনকে আটক করে। নওগাঁ সদর হাসপাতালের ডা. আরশাদ হোসেন বলেন, আঙ্গুলের রগ কেটে যাওয়ায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। ভাল হওয়ার সম্ভবনা খুবই ক্ষীণ। মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, রাতেই অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে সাতজনকে আটক করা হয়েছে।

"