পরিবহনের দাবিতে ইবির মেইন গেট অবরোধ

প্রকাশ : ১১ মার্চ ২০১৮, ০০:০০

এ আর রাশেদ, ইবি

ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের (ইবি) চলমান পরিবহন সংকটের নিরসনের দাবিতে বিশ^বিদ্যালয়ের মেইন গেট অবরোধ করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। গতকাল শনিবার কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ ও শৈলকূপা রুটের দুপুর ২টার ট্রিপের গাড়ি আকটে এ অবরোধ করে তারা। পরে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান ও ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলাম ঘঠনাস্থলে এসে শিক্ষর্থীদের আশ^াস দিলে প্রায় আধাঘন্টা পর তারা অবরোধ তুলে নেয়।

আন্দোলনরত কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, বর্তমানে ক্যাম্পাসের সবচেয়ে বড় সমস্যা হল পরিবহন সংকট। আর যেগুলো গাড়ি আছে তাও আবার ফিটনেসবিহীন। গাড়ি সংকটের মধ্যে আবার এসব লক্কড়ঝক্কড় মার্কা গাড়িতে তাদের অনেক কষ্ট ও অতিরিক্ত ঝুঁকি নিয়ে ক্যাম্পাসে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এ অবস্থায় বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়টি আমলে নিয়ে দ্রুত এ সমস্যার সমাধান না করলে বিশ^বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষর্থীদের নিয়ে আরো কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দিয়েছে তারা।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, পূর্ণাঙ্গ আবাসন সুবিধা না থাকা ও ক্যাম্পাসের আশেপাশে নিম্ন-পরিবেশের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশির ভাগ শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ শহরে থাকতে হয়। তারা ক্যাম্পাসে আসা-যাওয়া করেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবহনে। তবে এ বিপুলসংখ্যক শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে পরিবহন সেবা দেওয়ার মতো নিজস্ব গাড়ি নেই বিশ্ববিদ্যালয়টির। এ অবস্থায় নিজস্ব গাড়ি সংকটের কারনে ভাড়া গাড়ি দিয়ে এ চাহিদা পূরণ করতে হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে।

বিশ^বিদ্যালয় পরিবহন অফিস সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বহন করার জন্য বাস আছে মোট ৪৭টি। এর মধ্যে নিজস্ব মাত্র ১৬টি। এ ১৬টির মধ্যে আবার সচল রয়েছে মাত্র ১১টি। ভাড়ায় চালিত ৩১টি বাসের মধ্য ১৫টি কুষ্টিয়া সড়কে, ১১টি ঝিনাইদহ ও ৫টি শৈলকুপা সড়কে চলাচল করে।

এ বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘চলতি শিক্ষাবর্ষে নতুন আটটি বিভাগ চালু হওয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়ায় মূলত হঠাৎ পরিবহন সংকট দেখা দিয়েছে। তবে এ সমস্যা অতিদ্রুত যাতে সমাধান হয় সে জন্য আমারা পরিচালনা কমিটি আমাগীকাল বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে দেখা করবো।’

"