উদ্বোধনের প্রধান অতিথি সজীব ওয়াজেদ জয়

মসিকসহ ৯ পৌরসভায় ডিজিটাল সেবা শুরু

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

শেখ ফুয়াদ, ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনসহ (মসিক) আরো ৯টি পৌরসভার ডিজিটাল অটোমেশন পদ্ধতিতে নাগরিকসেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। এতে বিশেষ অতিথি থাকবেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। রাজধানী ঢাকা থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে আজ রোববার বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান প্রকল্পের আওতায় ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যানের মোড়ক উন্মোচন এবং ডিজিটাল মিউনিসিপালিটি সার্ভিস সিস্টেম পাইলট প্রকল্পের উদ্বোধন করা হবে। গতকাল শনিবার এ তথ্য জানিয়েছেন মসিক মেয়র ইকরামূল হক টিটু।

প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্ব এ অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি থাকবেন বাংলাদেশে কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হু কং-ইল। মসিকসহ ৯টি পৌরসভার অধীনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে যুক্ত হবে বলে ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন প্রকল্প পরিচালক মো. মনির হোসেন জানিয়েছেন। এ কর্মসূচিতে মসিকসহ আরো ৯টি পৌরসভা হচ্ছে ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, নাটোর, ঝিনাইদহ, টুঙ্গিপাড়া, পীরগঞ্জ, সিংড়া, তারাব ও রামগতি।

এই কর্মসূচির আওয়াতায় এখন থেকে মসিকের অনলাইনে পাঁচটি সেবা যথাÑ হোল্ডিং ট্যাক্স, অনলাইন ওয়াটার বিলিং সার্ভিসেস, অনলাইনে সিটি করপোরেশন সার্টিফিকেট সার্ভিসেস, অটোমেটেড প্রোপার্টি ম্যানেজমেন্ট সার্ভিসেস, ই-ট্রেড লাইসেন্স সার্ভিসেস ইত্যাদি। মসিকসহ দেশের আরো ৯টি পৌরসভায় মোট সাড়ে ২০ লাখ শহুরে নাগরিক, প্রায় দেড় লাখ হোল্ডিং অনলাইনে সেবার আওয়াতায় আসবে। তন্মধ্যে মসিকের ৮ লাখ ১৩ হাজার নাগরিক এবং ৫২ হাজার ৬০টি হোল্ডিং, প্রায় ৮ হাজার পানির সংযোগ, ১২ হাজার ৬০০ ট্রেড লাইসেন্স ও ৩৯৬টি প্রোপার্টি অনলাইনে নাগরিকসেবা নিতে পারবেন। এসব সেবা আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে দেওয়া হতো।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে এ প্রকল্পের আওতায় উন্নয়নকৃত ডিজিটাল মিউনিসিপালিটি সার্ভিস সিস্টেম পাইলটিংয়ের মাধ্যমে বর্ণিত পাঁচটি সেবা সিটি করপোরেশনের নাগরিককে অনলাইনে প্রদান করা সম্ভব হবে। এ লক্ষে মসিকের নাগরিকদের হালনাগাদ ডেটা এন্ট্রি আপলোডের কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। ফলে নাগরিকরা ঘরে বসেই বর্ণিত পাঁচটি সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। এতে করে স্বচ্ছতা, জবাবদিহি নিশ্চিত করার পাশাপাশি মানসম্মত সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে এবং নাগরিকদের টাইম, ভিজিট, কস্ট (টিভিসি) কম লাগবে। পাশাপাশি জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

ময়মনসিংহ বাংলাদেশের অন্যতম একটি প্রাচীন জেলা। ব্রিটিশ শাসনামলে রাজস্ব আদায় ও প্রশাসনিক সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির জন্য ১৭৮৭ সালের ১ মে এই জেলা গঠন করা হয়। ১৮১১ সালে ময়মনসিংহ শহর হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। পরবর্তী সময়ে ১৮৬৯ সালের ৮ এপ্রিল মূল শহরকে মিউনিসিপালিটি করা হয়। শহরের জনসংখ্যা বৃদ্ধিসহ নাগরিকসেবার চাহিদা বৃদ্ধির কারণে ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহকে বিভাগ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়। ময়মনসিংহ বিভাগ হওয়ার কারণে শহরে জনসংখ্যার চাপ আরো বৃদ্ধি পাওয়ায় নগরবাসীর নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষে ময়মনসিংহ পৌরসভাকে বিলুপ্ত করে ময়মনসিংহ শহরকে সিটি করপোরেশন করা হয়। যার আয়তন ৯০ দশমিক ১৭৩ বর্গকিলোমিটার এবং জনসংখ্যা ৮ লাখ। সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠার আগে বিলুপ্ত ময়মনসিংহ পৌরসভার আয়তন ছিল ২১ দশমিক ৭৩ বর্গকিলোমিটার এবং লোকসংখ্যা ছিল ৪ লাখ। ফলে অবকাঠামো উন্নয়নসহ জনগণের সেবার চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়েছে।

"