ডিএসসিসির নবসংযুক্ত ৮ ইউনিয়ন

উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষের দিকে

প্রকাশ : ০৮ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

হাসান ইমন

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) নবসংযুক্ত আট ইউনিয়নে ১ হাজার ২৪৯ কোটি টাকার দুটি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলছে। এগুলোর আওতায় ছোট-বড় সড়ক নির্মাণ, ফুটপাত, নর্দমা, সড়কবাতি স্থাপন, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ নানা উন্নয়ন কর্মকা- চলছে। এরই মধ্যে ৭৭৩ কোটি টাকার একটি প্রকল্পের কাজ শেষের দিকে। আর ৪৭৬ কোটি টাকার প্রকল্পটির কাজ চলমান।

জানা যায়, নাগরিকসেবা দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে রাজধানীকে উত্তর ও দক্ষিণ দুই ভাগে ভাগ করে সিটি করপোরেশন ঘোষণা করে সরকার। ২০১৭ সালের ৯ জুন প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটিতে (নিকার) ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সঙ্গে আটটি করে ইউনিয়ন যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরে একই বছরের ৩০ জুলাই ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে যুক্ত হওয়া ১৬ ইউনিয়নে মোট ৩৬টি নতুন ওয়ার্ড গঠন করে গেজেট প্রকাশ করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। এ নিয়ে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মোট ওয়ার্ডের সংখ্যা দাঁড়ায় ১২৯টি। নতুন ওয়ার্ডসহ ঢাকার দুই সিটির আয়তন ১২৯ বর্গকিলোমিটার থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ২৭০ বর্গকিলোমিটারে।

এরই মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের শ্যামপুর, দনিয়া, মাতুয়াইল, সারুলিয়া, ডেমরা, মা-া, দক্ষিণগাঁও ও নাসিরাবাদ ইউনিয়নকে ৫৮, ৫৯, ৬০, ৬১, ৬২, ৬৩, ৬৪, ৬৫, ৬৬, ৬৭, ৬৮, ৬৯, ৭০, ৭১, ৭২, ৭৩, ৭৪ ও ৭৫ নম্বর ওয়ার্ডে বিভক্ত করা হয়েছে। এসব ইউনিয়নের বাসিন্দারা এখনো নগরের ছোঁয়া পাননি। ওই এলাকাগুলোয় সবকিছুই গড়ে উঠেছে অপরিকল্পিতভাবে। ঘিঞ্জি, অলিগলি, সরুপথ ও এবড়োখেবড়ো সড়ক খানাখন্দে ভরা। কোনো কোনো ইউনিয়নে গ্যাস নেই, পানি নেই। নেই চলাচলের মতো রাস্তাও। ফলে খুব দুর্ভোগ নিয়ে চলছেন স্থানীয়রা। এলাকাবাসী জানায়, বর্ষা মৌসুমে তলিয়ে যায় পুরো ইউনিয়নের সড়কগুলো। এসব সড়কের ময়লা-আবর্জনামিশ্রিত পানি ডিঙিয়ে চলাচল করতে হয় এলাকার বাসিন্দাদের। ওই সময় দূষিত পানি ব্যবহারে রোগবালাইয়ের সঙ্গে এলাকার মানুষের বসবাস।

এসব থেকে মুক্তি দিতে ঢাকা দক্ষিণের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন দক্ষিণ সিটির নতুন আট ইউনিয়নে বর্তমান সিটি করপোরেশনের নাগরিকদের প্রাপ্ত সব সুবিধার চেয়েও বেশি নাগরিক সুবিধাসম্পন্ন করতে প্রয়োজনীয় সবকিছু করা। এরই মধ্যে তিনি এসব ইউনিয়নে বসবাসকারী নাগরিকদের নগরের ছোঁয়া দিতে এবং নাগরিক সুবিধা দিতে নানা উন্নয়ন কর্মকা- বাস্তবায়ন করেছে সংস্থাটি।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে নতুন যুক্ত হওয়া ৮ ইউনিয়নের মধ্যে মাতুয়াইল, সারুলিয়া, ধনিয়া ও শ্যামপুর ইউনিয়নে ৭৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে রাস্তা, নর্দমা, ফুটপাত, এলইডি বাতি স্থাপনসহ বিভিন্ন উন্নয়নকাজ চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যে ৯০ শতাংশের কাজ শেষ। এ প্রকল্পের মেয়াদ চলতি বছরের ডিসেম্বরে শেষ, যা ডিসেম্বরের মধ্যে পুরো কাজ শেষ হয়ে যাবে। এ প্রকল্পের ভেতর ১৬৭ কিলোমিটার সড়ক, ফটপাত ১২ কিলোমিটার ও নর্দমা ১৬৫ কিলোমিটার এবং দেড় কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ৭ হাজার ১৭৫টি এলইডি বাতি বসবে। এ ছাড়া ৪৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নাসিরাবাদ, দক্ষিণগাঁও, ডেমরা ও মা-া ইউনিয়নের অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ চলছে। এসব এলাকার উন্নয়নকাজের মধ্যে রয়েছে ৬৫ দশমিক ৭২ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ, ৭ দশমিক ৯৫ কিলোমিটার ফুটপাত নির্মাণ, ১৭টি আরসিসি সেতু নির্মাণ, ৮৪ কিলোমিটার নর্দমা নির্মাণ, ১১৬ দশমিক ১৮ কিলোমিটার রাস্তায় এলইডি বাতি স্থাপনসহ ইউটিলিটি লাইন স্থানান্তর। ২০২০ সালের জুন মাসের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। সিটি করপোরেশনের আওতাভুক্ত হওয়ার পর এবারই প্রথমবারের মতো উন্নয়নের ছোঁয়া পাচ্ছে এসব ইউনিয়নের বাসিন্দারা।

এ বিষয়ে ডিএসসিসি তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কাজী বোরহান উদ্দিন বলেন, নবসংযুক্ত আট ইউনিয়নের উন্নয়ন কর্মকা-ে ৭৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে শ্যামপুর, দনিয়া, মাতুয়াইল, সারুলিয়াÑ চার ইউনিয়নের ১৫২ দশমিক ৩৪ কিলোমিটার রাস্তা, ৬ দশমিক ১০ কিলোমিটার ফুটপাত, ১৫৮ দশমিক ৫০ কিলোমিটার নর্দমা, ১৪৩ দশমিক ৪৭ কিলোমিটার রাস্তায় এলইডি লাইটসহ নানা অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে প্রকল্পের কাজ ৯০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই বাকি কাজ সমাপ্ত হবে বলে আশা করছি।

 

"