শব্দহীন ফগার তৈরি করলেন বাবর

প্রকাশ : ০৮ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

খুলনা (মহানগর) প্রতিনিধি

খুলনা সিটি করপোরেশনের কর্মচারী মো. বাবর আলী শেখ। বাড়ি বটিয়াঘাটার খারাবাদ বাইনতলায়। এসএসসি পাসের পর আর পড়ালেখা হয়নি তার। তিনিই তৈরি করেছেন শব্দহীন ইজি ফগার। প্রতিদিনের কাজ শেষে রাতে ঘরে ফিরে করেন গবেষণা। আর সেই গবেষণার ফল ইজি ফগার। যেখানে বিদেশ থেকে আমদানি করা ফগারের বিকট শব্দে এলাকাবাসী টের পায় করপোরেশন মশা মারতে কামান ব্যবহার করছে। কিন্তু বাবরের ইজি ফগারের কোনো শব্দ নেই। এর ধোঁয়া দেড় লাখ টাকার ফগারের মতোই। বিদেশ থেকে আমদানি করা ফগারে ব্যবহার হয় পেট্রল, ড্রাইসেল ব্যাটারি এবং মশা মারার তেল বা মরটিন ওয়েল। ৩০ থেকে ৪৫ মিনিট এ ফগার চলতে পেট্রল লাগে ১ লিটার এবং মরটিন ওয়েল লাগে ৫ লিটার। সেখানে বাবরের ইজি ফগারে ৪৫ মিনিট চলতে এবং একই পরিমাণ ধোঁয়া তৈরি করতে লাগে দুই লিটার মরটিন ওয়েল এবং ২০০ এমএল এলপি গ্যাস। এই ফগারের কার্যক্রম দেখে কেউ কেউ বলছেন, এটি হলো ‘বাবরের ইজি ফগার’। এই ফগার তৈরিতে তিনি ব্যবহার করেছেন পাম্প, গ্রেট ভাল্ব, কম্প্রেসার মিটার, এলপি গ্যাস সিলেন্ডার এবং এসএস সামগ্রী।

খুলনা সিটি করপোরেশনের ফগারম্যান মো. আলমগীর গাজী জানান, ‘আমাদের ফগারে বিকট শব্দ হয়। মেশিন গরম হয় সেই পরিমাণে এবং অনেক ভারী। ঘাড়ে বেঁধে চালাতে গেলে খুব ভাইব্রেশন হয়। একটানা বেশিক্ষণ চালানো যায় না।’

উদ্ভাবক মো. বাবর আলী শেখ জানান, যন্ত্রটি তৈরি করতে দুই মাসের মতো সময় লেগেছে। আমি প্রতিদিন ফগার মেশিন মেরামত করতে করতে এ বিষয়ে চিন্তা আসে। এসব ফগার মেশিন বারবার মেরামত করতে হয়, খরচও বেশি, ভারী, বিকট শব্দ এবং এর মাথা খুব বেশি আপডাউন করা যায় না। অনেক সময় ফগার মেশিন চলতে চলতে আগুন লেগে যায়। আমি যেটি তৈরি করেছে এটির ওজন মাত্র ৫-৬ কেজি। যেখানে ফগার মেশিনের ওজন ১২-১৫ কেজি। আমার সব মিলিয়ে খরচ হয়েছে প্রায় ১৬ হাজার টাকা। আমি কোনো পৃষ্ঠপোষকতা পেলে আরো আধুনিক, কার্যকর এবং কম সময়ে এ ধরনের ফগার মেশিন তৈরি করতে পারব। উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে বাবর খুলনায় প্রথম তৈরি করেছিলেন মোটরচালিত বাইসাইকেল।

 

"