চসিকের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ

প্রকাশ : ২০ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের উন্নয়নকাজের অগ্রগতির প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য প্রকৌশলীদের তিন কর্মদিবস সময় বেঁধে দিয়েছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। গতকাল চসিকের সম্মেলন কক্ষে প্রকৌশলীদের সঙ্গে বৈঠক করে তিনি এ সময় বেঁধে দেন। চলমান এসব প্রকল্পের কাজের অগ্রগতির বিস্তারিত বিবরণ কাল বুধবারের মধ্যে চসিক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীদের তৈরি করে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন মেয়র।

সভায় চসিক পরিচালিত ট্রাক টার্মিনাল, এলইডি বাতি ও জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্প, এডিপি প্রকল্প, বিএমডিএফ প্রকল্প, জাইকা প্রকল্প, আরকান সড়ক উন্নয়ন, বারইপাড়া খাল খনন প্রকল্প, ফইল্যাতলি বাজার সড়ক উন্নয়ন এবং সেবক নিবাস নির্মাণের বিষয়ে আলোচনা হয়।

প্রকৌশলীদের উদ্দেশে মেয়র বলেন, প্রকৌশলীদের সততা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে। কার্যাদেশে নির্ধারিত সময়ের মধ্য কাজ সম্পন্ন করতে হবে। কোনো অজুহাত গ্রহণ করা হবে না। প্রকৌশল বিভাগের ওপর নাগরিক সেবা বহুলাংশে নির্ভর করে। শতভাগ নাগরিক সেবার স্বার্থে প্রত্যেককে দায়িত্বশীল হওয়া জরুরি। জবাবদিহির ভিত্তিতে নিজ নিজ বিভাগের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। একে অপরের সঙ্গে কো-অপারেশনের মাধ্যমে উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পাদন করলে কাজের গুণগতমান নিশ্চিত হবে। আমরা দায়িত্বের প্রতি যতœবান হলে নাগরিক প্রত্যাশা শতভাগ পূরণ হবেই। সভায় নগরীর ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাগুলোতে জরুরি ভিত্তিতে প্যাচওয়ার্ক শুরু করার জন্য সংশ্লিদের তিনি দিকনির্দেশনা দেন। চসিকের যেসব প্রকল্প বাকি আছে, সেগুলো আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করতে বলা হয়েছে। এতে যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ঠিকাদার নিয়োগের পরামর্শ দেন মেয়র। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, সিটি মেয়রের একান্ত সচিব মো. আবুল হাশেম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক, প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার, স্থপতি সোহেল মাহমুদ শাকুর, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মনিরুল হুদা, আনোয়ার হোছাইন, কামরুল ইসলাম, আবু ছালেহ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সুদীপ বসাক, ঝুলন কুমার দাশ প্রমুখ।

 

"