রেলস্টেশনে আকস্মিক পরিদর্শন

নিজ হাতে ময়লা ফেললেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার

প্রকাশ : ২৫ মে ২০১৯, ০০:০০

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নানের নেতৃত্বে একটি পরিদর্শক টিম গতকাল চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শন করে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে। এ সময় বিভাগীয় কমিশনার স্টেশনের প্ল্যাটফরমে থাকা অবৈধ ভাসমান দোকান, বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপনের ব্যানার, প্ল্যাটফরম ও রেললাইনে যত্রতত্রভাবে পড়ে থাকা পলিথিন, টিস্যু পেপার, চিপসের প্যাকেট, কাগজ, নোংরা কাপড়সহ অন্যান্য ময়লা-আবর্জনা দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি নিজের হাতে কিছু ময়লাও পরিষ্কার করেন।

এ সময় স্টেশনের বারান্দা, প্ল্যাটফরম ও রেললাইন নিয়মিত ময়লা-আবর্জনামুক্ত পরিষ্কার-পরিছন্ন রাখাসহ ভাসমান দোকান উচ্ছেদ করতে রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার ও স্টেশন ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন তিনি।

আকস্মিক পরিদর্শনকালে টিমে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের জেনারেল ম্যানেজার সৈয়দ ফারুক আহমদ, রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ, বিভাগীয় কমিশনারের পিএস অভিষেক দাশ, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর কমান্ডার ইকবাল হোসেনসহ রেলওয়ের পদস্থ কর্মকর্তারা।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শনে গিয়ে ঈদে রেলের অগ্রিম টিকিট বিক্রি ও টিকিট কালোবাজারি বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিভাগীয় কমিশনার বলেন, ‘প্রতিদিন চট্টগ্রাম থেকে বিভিন্ন ট্রেনের ১২ হাজার টিকিট বিক্রি হচ্ছে। শোনা আর নিজের চোখে দেখা এক কথা নয়, সে জন্য রেলওয়ে স্টেশন আকস্মিকভাবে পরিদর্শন করা হয়েছে। এখানে মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে সুশৃঙ্খলভাবে টিকিট নিচ্ছে। টিকিট কালোবাজারি পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হবে, একজনকেও ছাড়া হবে না।’

তিনি বলেন, ‘কালোবাজারি রোধে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নজরদারিতে রয়েছে। সারা দেশে মানুষ যাতে ক্ষতি বা হয়রানির শিকার না হন, সেটা দেখা আমাদের প্রধান কাজ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিন-রাত পরিশ্রম করে যে কাজগুলো করে যাচ্ছেন, এর সুফল দেশের মানুষ ভোগ করছে। এ জন্য দেশ অনেক দূর এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা আরো আশাবাদী, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশে অনেক কিছু করার আমাদের সুযোগ আছে, সামর্থ্য আছে। আমরা মানুষকে স্বস্তিতে রাখতে চাই।’

রেলস্টেশন পরিষ্কার রাখা বিষয়ে তিনি বলেন, রেলস্টেশন এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন আছে কি না তা ঘুরে দেখা এক ধরনের শখ। বিগত দশ বছর আগে রেলস্টেশনগুলো এত পরিষ্কার ছিল না। রেলওয়ে স্টেশনের সঙ্গে সারা দুনিয়ার রেলস্টেশনগুলো যে ধরনের পরিষ্কার, আমরা আমাদের দেশের রেলস্টেশনগুলো সে ধরনের রাখতে চাই। ময়লা-আবর্জনা নির্দিষ্ট জায়গা ছাড়া কোথাও না ফেলতে মানুষকে অভ্যস্ত করে তুলতে হবে। এ জন্য স্টেশন ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক হতে হবে।

 

"