কুমিল্লায় কিশোর গ্যাংয়ের হাতে ফের স্কুলছাত্র খুন

প্রকাশ : ১৫ মে ২০১৯, ০০:০০

মারুফ আহমেদ, কুমিল্লা

কুমিল্লায় দিনে দিনে কিশোর অপরাধ মারাত্মক আকার ধারণ করছে, ভয়ংকর হয়ে উঠছে কিশোর গ্যাং। বিভিন্ন নামে কুমিল্লায় স্কুলভিত্তিক অর্ধশত কিশোর গ্যাং রয়েছে বলে জানা গেছে। তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে মারামারি, খোনাখুনি তাদের মধ্যে প্রায় নিত্যদিনের ব্যাপার হয়ে পড়েছে। ২৩ দিনের ব্যবধানে সেখানে আরেকটি কিশোর খুনের ঘটনা ঘটেছে।

গত সোমবার রাত ১০টার দিকে নগরীর মোগলটুলী এলাকায় ‘ঈগল গ্রুপের’ সদস্যদের হাতে নৃশংসভাবে খুন হয় আজমাইন আদিল (১৬) নামে এক স্কুলছাত্র। নগরীর মোগলটুলী এলাকার কর্ণফুলী পেপার হাউসের সামনে এ হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। নিহত আদিল নগরীর ঝাউতলা এলাকার আবদুস ছাত্তারের ছেলে ও মডার্ন স্কুল থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় নগরীর মোগলটুলী এলাকা দিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে যাচ্ছিল আদিল। এ সময় ‘ঈগল গ্রুপের’ সদস্য অনিকের গায়ে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগে। এতে অনিক ক্ষুব্ধ হয়ে আদিলের মোটরসাইকেল আটক করে এবং ঈগল গ্রুপের অন্য সদস্যদের খবর দেয়। খবর পেয়ে গ্যাংয়ের ৫-৬ জন সদস্য এসে মোগলটুলী কর্ণফুলী পেপার হাউস নামে দোকানের সামনে আদিলকে রামদা, ছুরি ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আদিলকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তানভীর সালেহীন ইমন ও কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আবু ছালাম মিয়া সাংবাদিকদের জানান, ঘটনার নেপথ্যের কারণ ও ঘাতকদের গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে রয়েছে, শিগগিরই তাদের আটক করা সম্ভব হবে। হত্যাকা-ে জড়িত ঘাতকদের গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে অভিযান চালাচ্ছে। এরই মধ্যে পুলিশ ওই হত্যাকা-ে জড়িতদের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে বলে জানা গেছে। পুলিশ হত্যাকা-ের নেপথ্যে অন্য কোনো বিরোধ থাকতে পারে বলে ধারণা করছে। এ হত্যাকা-ের বিষয়ে নিহত আদিলের একাধিক সহপাঠীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ বেশ কিছু তথ্য পেয়েছে বলে কোতোয়ালি থানা সূত্রে জানা গেছে।

এর আগে গত ২১ এপ্রিল শবেবরাতের রাতে নগরীতে কিশোর সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে কুমিল্লা মডার্ন হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মুমতাহিন হাসান মিরণ নিহত হয়েছিল। পরে পুলিশ খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ওই ঘটনায় করা হত্যা মামলায় দুই আসামি মো. আমিন ও সৌরভ হোসেন পল্টুকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতার করে।

 

"