দখল হওয়া খাল পুনরুদ্ধার করবই : মেয়র আতিকুল

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, পরিদর্শনে দেখেছি খাল দখলের কারণে মানুষের কী দুর্বিষহ ভোগান্তি হচ্ছে। খালসহ যত ধরনের জলাধার-জলাশয় আমাদের আছে সেগুলো দখল বা ভরাটের জন্য যারাই দায়ী, আমি তাদের ভালোবেসে আন্তরিকভাবে প্রথমে বলব, তারা যেন দখল ছেড়ে দেন। যদি তাতে কাজ না হয় তাহলে আমার কর্মকর্তাদের কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছি। আমি নিজে তদারকি করব। দখল হওয়া খাল পুনরুদ্ধার করে ছাড়ব।

গতকাল মঙ্গলবার ডিএনসিসি এলাকার খাল সরেজমিন পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

আতিকুল ইসলাম বলেন, খাল পরিদর্শনে এসে দেখতে পেলাম পানি প্রবাহের জায়গায় ময়লা, আবর্জনা, প্লাস্টিকসহ বিভিন্ন জিনিসের স্তূপ সৃষ্টি হয়ে আছে। এগুলো পানির প্রবাহকে নষ্ট করছে। বর্ষার আগেই আমরা এগুলো পরিষ্কার করার পাশাপাশি খনন করে গভিরতা সৃষ্টি করব। যেন পানি প্রবাহ ঠিক থাকে। পাশাপাশি আশপাশে যেসব দোকান আছে সেগুলোতে একটি মিনি বিন (ময়লার পাত্র) রাখা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। যাতে করে কেউ এসব ময়লা খালে, ড্রেনে না ফেলেন। আগামী ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। যাতে করে সবাই সচেতন হয়ে নিজের আশপাশে পরিচ্ছন্ন রাখে। সবাই সচেতন হলে একটি পরিচ্ছন্ন সুন্দর নগরী গড়ে তোলা সম্ভব বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মেয়র বলেন, এখন সময় এসেছে যে, নগরবাসী একটি সুন্দর, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন শহরে ভোগান্তি, দুর্ভোগ ছাড়া বাস করবেন। আমি কোনো অজুহাত শুনব না। প্রয়োজনে আমি খালে নেমে খাল খনন করব। যেখানে আটকে যাবেন, পারবেন না; আমাকে বলবেন। আমি চাই বর্ষার আগে যত দ্রুত সম্ভব খালগুলো উদ্ধার করে নগরবাসীকে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি দেব। আজকে যেসব জায়গায় বলে এসেছি তারা দখল সরিয়ে না নিলে আগামী রোববার থেকে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হবে।

সবশেষে খাল পুনরুদ্ধারে গণমাধ্যমের সাহায্য চেয়ে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, আমরা কাজ করছি, করব। আপনারা সবসময় আমাদের সঙ্গে ছিলেন। আমি আহ্বান জানাচ্ছি যেন আপনারা আগামীতেও আমাদের সঙ্গে থাকেন। ভালো কিছু করতে হলে জনমত গঠন করতে হবে। জনমতের সামনে কোনো কিছু টিকবে না। আর জনমত গঠনে গণমাধ্যমের বিকল্প কিছু নেই।

এর আগে আসন্ন বর্ষায় জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষ্যে করণীয় ঠিক করতে গতকাল সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ডিএনসিসি এলাকার কসাই বাড়ি শায়েস্তা খাঁ এভিনিউ, উত্তরা আশকোনা, বনানী মাছরাঙা টিভি ভবনের সামনের সড়ক এবং উত্তর বাড্ডার সুতিখাল পরিদর্শন করেন আতিকুল।

এ সময় শায়েস্তা খাঁ এভিনিউতে গিয়ে মেয়র দেখতে পান যে, কসাইবাড়ী এলাকায় ড্রেনের ওপর অবৈধভাবে বিভিন্ন ধরনের স্থাপনা নির্মাণ করায় জলাবদ্ধতা তৈরি হয়। তিনি আগামী দুই দিনের মধ্যে এসব স্থাপনা সরিয়ে ফেলার জন্য সময় দেন। এরপর আশকোনা এলাকায় মূল সড়কের জলাবদ্ধতা দেখে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই এলাকার সব ড্রেন পরিষ্কারের জন্য ওয়াসাকে নির্দেশ দিয়েছেন। তাছাড়া এই এলাকার জলাবদ্ধতা স্থায়ীভাবে নিরসনের লক্ষ্যে সিভিল এভিয়েশন, ওয়াসা ও ডিএনসিসিকে তিনি নির্দেশ দেন। এছাড়া বনানী এলাকায় এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ের নির্মাণ কাজের জন্য যাতে জলাবদ্ধতা তৈরি না হয় সেই বিষয়ে এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ের প্রকল্প পরিচালককে রেললাইন ও মূল সড়কের মাঝের জলাশয় আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ৩০০ ফুট গভীর করার নির্দেশ দেন মেয়র আতিকুল।

 

"