বিচারক আতিকুস সামাদের ‘পিএইচডি’ ডিগ্রি অর্জন

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

এস এইচ এম তরিকুল, রাজশাহী

খুলনা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আতিকুস সামাদ পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিস (আইবিএস) থেকে ‘সিভিল জাস্টিস সিস্টেম ইন বাংলাদেশ : স্ট্যাটাস, ইমপেডিমেন্টস অ্যান্ড এক্সেলেরেটিং স্ট্রাটেজিস’ শিরোনামে গবেষণা করে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন তিনি। গতকাল বুধবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) একাডেমিক কাউন্সিলের ২৪৮তম সভায় আতিকুস সামাদের গবেষণা কার্যটি অনুমোদিত হয়। তার এ গবেষণা কার্যটি বিচার বিভাগে দেওয়ানি মামলার জট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

গবেষণায় আতিকুস সামাদ উল্লেখ করেন, বর্তমানে বাংলাদেশে দেওয়ানি মামলার সংখ্যা প্রায় ১৮ লাখ। এক-একটি মামলা শেষ হতে সময় লাগে প্রায় ১০-১৫ বছর। গবেষণায় বাংলাদেশের দেওয়ানি বিচারব্যবস্থার সমস্যাগুলো তুলে ধরা হয়েছে। একই সঙ্গে সমস্যা নিরসনে আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডা, জাপান ও জার্মানির দেওয়ানি বিচারব্যবস্থার পদ্ধতি তুলে ধরে বাংলাদেশের জন্য একটি আধুনিক বিচারব্যবস্থার রূপরেখা বর্ণনা করেছেন তিনি।

গবেষণার বিষয়ে আতিকুস সামাদ প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, তার এ গবেষণা কার্যক্রমে সময় লেগেছে প্রায় ছয় বছর। দেশের বিভিন্ন আদালতের ১৬৫ জন বিচারক, ১৬৫ জন আইনজীবী ও ১৬৫ জন বিচারপ্রার্থীর কাছ থেকে প্রশ্নমালার মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করেছেন।

ড. মো. আতিকুস সামাদ ১৯৮৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর তারিখে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মাছখোলা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবা আলহাজ মো. আতাউর রহমান বাংলাদেশ আনসারের জেলা কমানডেন্ট হিসেবে সম্প্রতি অবসর গ্রহণ করেছেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক সন্তানের জনক এবং তার স্ত্রী ৩৪তম বিসিএসের (নন-ক্যাডার) একজন সদস্য। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আইন বিভাগ থেকে এলএলবি (সম্মান) ও এলএলএম ডিগ্রি অর্জন করেন। তার লেখা বিভিন্ন গবেষণাধর্মী প্রবন্ধ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জার্নালে স্থান পেয়েছে।

 

"