নারায়ণগঞ্জে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ, আহত অর্ধশত

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

উৎপাদন মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বিসিক শিল্প নগরীতে ফকির নিটওয়্যার নামের একটি রপ্তানিমূখী পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভসহ বেশ কয়েকটি কারখানা ভাংচুর করেছে। এসময় পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে শিল্প পুলিশের এক সহকারি পুলিশ সুপার, ফতুল্লা থানার ওসি ও বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যসহ প্রায় অর্ধশত শ্রমিক আহত হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত দফায় দফায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও শিল্প মালিকরা জানান, উৎপাদন মজুরি বৃদ্ধি নিয়ে ফকির নিটওয়্যার কারখানার শ্রমিকদের মধ্যে গত তিনদিন ধরে শ্রমিক অসন্তোষ চলছিল। মালিকপক্ষ মজুরি বৃদ্ধি করলেও দাবী অনুযায়ী বৃদ্ধি না হওয়ায় শ্রমিকরা রবিবার কারখানাটির অভ্যন্তরে বিক্ষোভ করে। এ অসন্তোষ নিরসনে কারখানাটির মালিকপক্ষ সোমবার সকালে বিসিক কর্তৃপক্ষ, বিকেএমইএ ও শ্রম অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের নিয়ে আলোচনায় বসেন। তারা বিভিন্ন কারখানার মালিকদের সাথে আলোচনা করে তাদের সাথে উৎপাদন মজুরি সমন্বয় করার আশ্বাস দিলেও শ্রমিকরা তা না মেনে বিসিকের অভ্যন্তরে বিক্ষোভ শুরু করে। পরে এ বিক্ষোভ পুরো বিসিকে ছড়িয়ে পড়লে বিশেষ পোশাকধারী বহিরাগত শতাধিক যুবক এসে শ্রমিকদের সাথে যোগ দেয়। এসময় তারা বিসিকসহ আশপাশের ২০ থেকে ২৫টি কারখানায় হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে।

খবর পেয়ে শিল্প পুলিশ ও ফতুল্লা থানা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ বিপুল পরিমান পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করে। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মঞ্জুর কাদের জানান, শ্রমিকদের সাথে ফকির নিটওয়্যারের মালিক পক্ষের উৎপাদন মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে বেশ কিছুদিন ধরেই উত্তেজনা ছিল এই প্রতিষ্ঠানটিতে। আজ শ্রমিকদের দাবি না মেনে তাদেরকে ছুটি প্রদান করায় শ্রমিকেরা বিক্ষুব্ধ হয়ে গার্মেন্টস ভাংচুর করে ও বিক্ষোভ মিছিল শুরুকরলে পুলিশ তাদের নিভৃত করার চেষ্টা করে। এতে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে আমিসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হই। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে মোতায়েন রয়েছে।

"