অবহেলা উদাসীনতা অযতেœ নারায়ণগঞ্জের শহীদ মিনার

প্রকাশ : ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আল-আমিন মিন্টু, নারায়ণগঞ্জ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও অমর একুশে ফেব্রুয়ারি, স্বাধীনতা দিবস কিংবা বিজয় দিবস এলেই প্রশাসনের তরফ থেকে শহীদ মিনারকে ধোয়া-মোছার কাজ শুরু হয়। তখন শহীদ মিনারের নিরাপত্তা বিধানে তৎপর হয়ে ওঠে প্রশাসন ও রাজনৈতিক দলসহ সংশ্লিষ্ট মহল। ফুলে ফুলে ভরে যায় স্মৃতির মিনার। কিন্তু স্মৃতিকাতর এই ক্ষণটি বেশি দিন স্থায়ী হয় না। এরপরই অবহেলায়, অযতেœ আর উদাসীনতায় পড়ে থাকে শহীদ মিনার। তখন এর ন্যূনতম মর্যাদার ধার ধারে না কেউ। এই চিত্র নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়ার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের।

যেসব স্থান সুরক্ষিত ও পরিষ্কার পরিছন্ন থাকার দরকার, তা দেখার কেউ আর থাকে না। যে শহীদ মিনার নিয়ে বাঙালির এত আবেগ, সেই শহীদ মিনারের অবহেলা এখন নিত্যদিনের ব্যাপার হয়ে গেছে।

নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়ায় অবস্থিত শহীদ মিনার এলাকা সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পুলিশ বসে থাকে একপাশে। শহীদ মিনারে বসে সময় কাটান কিংবা সেলফি তোলে জুতা পায়ে মিনারের ওপর বসে বা দাঁড়িয়ে।

দেখা গেছে, শহীদ মিনারে জুতা পরিহিত অবস্থায় শিক্ষার্থী বসে আছে। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরাও জুতা পায়ে দৌড়াদৌড়ি করছে মিনারের ওপরে। অনেকে শুয়ে আছে, অনেককে ঘুমাতে দেখা গেছে সেখানে। অনেক পাগল কিছিমের মানুষ অপরিছন্ন অবস্থায় শুয়ে আছে মিনারের ওপর। সরেজমিনে গিয়ে আরো দেখা যায়, শহীদ মিনারের চত্বরে কেউ কেউ বেশ কয়েক বছর ধরে ১০ বা ১২টা চটপটি দোকান বসিয়ে দেদার ব্যবসা করছে। আরো দেখা যায়, জালমুড়ি, পান-সিগারেটের দোকানসহ শহীদ মিনারের দেয়ালঘেঁষা চায়ের দোকান রয়েছে। তারাও ভেতরে বিভিন্ন ধরনের ময়লা-আবর্জনা ফেলে মিনারের পরিবেশ নষ্ট করছে।

অবাক হওয়ার মতো বিষয় হলো শহীদ মিনারের ভেতরে প্রতিদিন দেখা যায় পুলিশ প্রশাসনের লোকজন বসা আছে। তবে তারা এসব বিষয়ে খেয়াল করে কি নাÑএমন প্রশ্নে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন পুলিশ সদস্য বলেন, আমরা কয়জনকে দেখে রাখব? বিভিন্ন ধরনের লোকজন আসে এখানে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শহীদ মিনারে জুতা পায়ে বসে আছে একজন ছাত্র, নাম রায়হান। পাশেই বসা আরেকজন। তাদের এ ব্যাপারে কথা বলতে চাইলে, সঙ্গে সঙ্গে তারা সড়ে পড়ে। হাসান নামের একজন জানান, শহীদ মিনারে আসি ভালো লাগে। কষ্ট পাই যখন দেখি অনেকে জুতা পায়ে বসে থাকে।

পৌর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জুতা পায়ে বসে থাকতে দেখা যায়, এ বিষয়ে জানতে চাইলে, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর মোসাম্মাৎ আয়শা আকতার বলেন, এটা আমার এলাকা না। এ বিষয়ে আমি কিছুই বলতে পারব না।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর শারমিন হাবিব বিন্নির সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলতে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। শহীদ মিনারে বিকালবেলা ঘুরতে আসা অনেকেই জানিয়েছে, শহীদ মিনারে জুতা পায়ে কেউ উঠলে কষ্ট পাই। আরো কষ্ট পাই যখন দেখি কোনো ছাত্র জুতা পায়ে মিনারের বেদিতে বসে আছে। তবে এ বিষয়ে প্রশাসনসহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলরদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন তারা।

 

"