কারখানায় ‘ইনজুরি স্কিম’ নিয়ে আলোচনা শিগগিরই : প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

শিল্পকারখানার দুর্ঘটনায় কর্মীদের ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করতে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) যে ‘এমপ্লয়মেন্ট ইনজুরি স্কিম’ চালুর প্রস্তাব করেছে, তাতে এখনই সাড়া দিচ্ছে না সরকার। তবে আইএলওর কাছ থেকে কাগজপত্র নিয়ে সরকার শিগগিরই আলোচনা শুরু করবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু। গতকাল বুধবার সচিবালয়ে আইএলও পরিচালক (গ্লোবাল প্রোগ্রাম এমপ্লয়মেন্ট ইনজুরি অ্যান্ড ইনসুরেন্স প্রোটেকশন) অ্যান ড্রুইনের সঙ্গে এক বৈঠকের পর প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

চুন্নু বলেন, আইএলও বাংলাদেশে কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনার জন্য এমপ্লয়মেন্ট ইনজুরি স্কিম চালুর প্রস্তাব দিয়েছে। এই স্কিম চালু করলে বিভিন্নভাবে তারা সাহায্য-সহযোগিতা করতে চায়। আমরা বলেছি, বাংলাদেশের অর্থসামাজিক অবস্থার প্রেক্ষিতে এখনই ইনজুরি স্কিম চালু করার মতো পরিবেশ-পরিস্থিতি আমাদের নেই। কারখানাগুলো এগিয়ে যাচ্ছে, কারখানার মালিকরা এখনো এ বিষয়ে প্রস্তুত নন। তবে এ বিষয়ে আইএলওর কাছে কাগজপত্র চাওয়া হয়েছে জানিয়ে চুন্নু বলেন, স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে কথা বলব, আলাপ-আলোচনার পর এ বিষয়ে কাজ করে চিন্তাভাবনা করব। সামনে নির্বাচন, এখন সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় নয়। পরে যে সরকার আসবে তারা এ বিষয়ে চিন্তাভাবনা করবে।

এর আগে গতবছর এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এমপ্লয়মেন্ট ইনজুরি স্কিম চালুর ওপর জোর দিয়েছিলেন। তাজরিন ফ্যাশনসে অগ্নিকা- এবং রানা প্লাজা ধসের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেছেন, বড় ধরনের দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণের ক্ষেত্রে বিপুল অর্থের প্রয়োজন হয়। তৈরি পোশাকশিল্পের সাম্প্রতিক দুর্ঘটনায় আমরা তা উপলব্ধি করেছি। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের উপায় হলো দীর্ঘ মেয়াদি ও টেকসই এমপ্লয়মেন্ট ইনজুরি স্কিম চালু করা। এদিকে, সংসদের অক্টোবরের অধিবেশনেই সংশোধিত শ্রম আইন পাসের জন্য তোলা হবে বলে জানিয়েছেন শ্রম প্রতিমন্ত্রী। আইন সংশোধনের বিষয়টি নিয়ে আইএলও পরিচালকের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে চুন্নু বলেন, সংশোধিত আইনের খসড়ায় মন্ত্রিসভা নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। এখন তা আইন মন্ত্রণালয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আছে।

"