গরু মোটাতাজাকরণে সম্পূরক খাদ্যের উদ্ভাবন

প্রকাশ : ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএলআরআই) এর সঙ্গে বিসিএসআইআরের চামড়া গবেষণা ইনস্টিটিউটের মাঝে ভেড়ার চামড়া এবং চামড়াজাত পণ্যের গবেষণা, বহুমুখী ব্যবহার বিষয়ক একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। গতকাল মঙ্গলবার বিসিএসআইআরের কনফারেন্স কক্ষে এ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। অনুষ্ঠানে বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান মো. ফারুক আহমেদ বলেন, বিসিএসআইআর গবাদিপশু ও হাস-মুরগির সম্পূরক ও পুষ্টিকর খাদ্য হিসেবে বিভিন্ন প্রকার শৈবাল এবং ক্ষুদেপানার ব্যবহার করে ক্লোরেলা নামক উন্নত মানের পশুখাদ্যের প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে।

প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে প্রস্তুত এ খাদ্য গরু মোটাতাজা করায় খুবই কার্যকর। আমরা জনস্বাস্থ্যের বিষয় বিবেচনা করে প্রাকৃতিক উপায়ে এবং সম্পূর্ণ কেমিক্যালমুক্ত এ পশুখাদ্য উদ্ভাবন করেছি। এ খাদ্য গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া এবং হাস-মুরগির দ্রুতবর্ধনে বিশেষ উপযোগী।

এ সম্পূরক ও পুষ্টিকর খাদ্য হলোÑ কয়েকটি ভিন্ন প্রকারের এককোষী জলজ উদ্ভিদ ও সবুজ শৈবালের মিশ্রণ এবং খুদেপানা। এ খাদ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আমিষ, ভিটামিন, লৌহসহ একাধিক খনিজ পদার্থ ও ক্লোরোফিল।

খামারিরা প্রশিক্ষণ নিয়ে ঘরে বসেই এ খাদ্য প্রস্তুত করতে পারেন। তিনি আরো বলেন, আজকের এই যৌথ গবেষণা কার্যক্রম ও সমঝোতার মাধ্যমে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনন্থ বিএলআরআই এবং বিসিএসআইআর দেশের কৃষি খাতের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় দ্বার উন্মুক্ত করল।

সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন বিসিএসআইআর সচিব মো. খলিলুর রহমান এবং বিএলআরআইয়ের পক্ষে মো. আজাহারুল আমিন, অতিরিক্ত পরিচালক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএলআরআইয়ের মহাপরিচালক ড. নাথু রাম সরকার, বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান মো. ফারুক আহমেদ, পরিষদের সদস্যসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"