রাজশাহীতে আবর্জনার স্তূপ ভোগান্তিতে পথচারীরা

প্রকাশ : ১১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

রাজশাহী ব্যুরো

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাজশাহী মহানগরী আবার আবর্জনার স্তূপে পরিণত হয়েছে। আবর্জনার স্তূপের নির্ধারিত স্থান ছাড়াও ফুটপাত ও রাস্তার ওপর আবর্জনা পড়ে থাকায় ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন পথচারীরা। দুর্গন্ধে মানুষের হাঁটা-চলাই দায় হয়ে পড়েছে। নির্বাচনের আগে কিছুটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকলেও বর্তমান রাজশাহীতে বিভিন্ন স্থানে ময়লা ও আবর্জনার স্তূপে ভরে গেছে। এ নিয়ে স্থানীয় ও পথচারীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

কোনো কোনো ডাস্টবিন থেকে দীর্ঘদিন ময়লা-আবর্জনা উঠানো হয় না। যার কারণে আবর্জনায় ভরে রাস্তার ওপর পর্যন্ত এসেছে গেছে। এ জন্য পথচারীরা চলাচল করতে পারছে না। এই ময়লা আবর্জনা পথচারীদের শুধু ভোগান্তির মধ্যেই ফেলছে না, পরিবেশও দূষিত করছে।

জানা গেছে, রাজশাহী মহানগরীর প্রত্যেকটি ওয়ার্ডের পাড়া-মহল্লার বাসা-বাড়ি থেকে ভ্যানে করে ময়লা আবর্জনা সংগ্রহ করে নির্ধারিত ময়লা ফেলার স্থানে ফেলা হয়। সারা দিন বিভিন্ন এলাকা থেকে যে ময়লা-আবর্জনা জড়ো হয় সেই আবর্জনাগুলো রাতে ট্রাকে করে বাইরে ফেলে দিয়ে আসা হয়। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন এলাকার সেই আবর্জনা ফেলার স্থানগুলোতে আবর্জনা পড়ে থাকতে দেখা গেছে। নগরীর প্রায় এলাকাতে এ চিত্র দেখা গেছে। এতে ময়লার স্তূপ থেকে ব্যাপক দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। দুর্গন্ধে মানুষের চলাচল দায় হয়ে পড়েছে।

নগরীর বিলসিমলা এলাকার নাইম নামের এক ব্যক্তি বলেন, গত কয়েকদিন ধরে দেখছি ময়লা নিয়ে যাওয়া হচ্ছে না। যার কারণে ময়লার স্তূপে পরিণত হয়েছে। দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। তাই নিয়মিত যাতে আবর্জনাগুলো তুলে ফেলা হয় সেই ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিত। লোকমান নামের অপর এক ব্যক্তি বলেন, পরিচ্ছন্ন নগরীতে হঠাৎ করে যেভাবে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ পড়ে থাকছে তাতে ব্যাপকভাবে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে এক সময় অন্যান্য নগরীর মতো রাজশাহী নগরীকেও অপরিচ্ছন্ন হিসেবে চিনতে শুরু করবে মানুষ। এ বিষয়ে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকতা মামুন বলেন, তার জানা মতে আবর্জনা পড়ে থাকার কথা নয়। যদি এমনটি হয় তাহলে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হয়েছে গত ৩০ জুলাই। এখনো নব-নির্বাচিত মেয়র দায়িত্ব নেননি। নির্বাচনের আগে গত ১০ জুলাই পূর্বের মেয়র পদ ছেড়ে দিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন।

 

"