শাপেকোয়েনসেকে হারিয়েছে বার্সা

ন্যু ক্যাম্পে ফুটবলের জয়

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক ডেস্ক

নেইমার-কান্ডের পর প্রথমবারের মতো মাঠে নেমেছিল বার্সেলোনা। কিন্তু নেইমারের অভাব যেন বুঝতেই দিলেন না মেসি। নিজে একটি গোল করলেন ও দুটি করালেন। মেসির নৈপুণ্যে বার্সেলোনাও পেল প্রত্যাশিত বড় জয়। মৌসুম শুরুর আগে ব্রাজিলের ক্লাব শাপেকোয়েনসেকে হারিয়ে জুয়ান গাম্পের ট্রফি জিতে নিয়েছে এরনেস্তো ভালভেরদের দল। তবে সবকিছু ছাপিয়ে এ ম্যাচে হয়েছে ফুটবলের জয়। মাঠের খেলায় ছাড় না দিলেও এ ম্যাচের প্রতি মুহূর্তে সব হারানো শাপোকোয়েনসেকে বার্সা জানিয়েছে শ্রদ্ধা ও সম্মান।

সোমবার বার্সার ঘরের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে শাপেকোয়েনসেকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বার্সেলোনা। মেসি-সুয়ারেজ-ইনিয়েস্তারা সুযোগ নষ্ট না করলে ব্যবধান আরো বাড়তে পারত।

ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই লিড নিতে পারত বার্সা। কিন্তু মেসির শট লক্ষ্যে থাকেনি। পরের মিনিটে গোলরক্ষক বরাবর শট নিয়ে আরেকটি সহজ সুযোগ নষ্ট করেন সুয়ারেজ।

তবে ষষ্ঠ মিনিটে বার্সাকে আর রুখতে পারেনি ব্রাজিলের ক্লাবটি। গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বাঁ-দিকে বল বাড়ান ইভান রাকিতিচ, ফাঁকায় পেয়ে অনায়াসে লক্ষ্যভেদ করেন এ মৌসুমেই ন্যু ক্যাম্পে ফেরা জেরার্ড দেউলোফেউ। পাঁচ মিনিট পর প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে জোরালো শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সার্জিও বুসকেটস। ২৭ মিনিটে মেসির দারুণ ফ্লিক ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। তবে পরের মিনিটে স্প্যানিশ উইঙ্গার দেউলোফেউয়ের বাড়ানো বল উঁচু শটে জালে পাঠান মেসি।

৪৩ মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও সুযোগটা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। আর ৪৫ মিনিটে সুয়ারেজের বিদ্যুৎ গতির ভলি ডান দিকে ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক ব্রাজিলের এলিয়াস কুরজেল। বিরতি থেকে ফিরে দশম মিনিটে স্কোরশিটে নাম লেখান সুয়ারেজ। মেসির পাস ধরে ডান পায়ের শটে গোলটি করেন উরুগুয়ের স্ট্রাইকার।

৭৪ মিনিটে দলের পঞ্চম গোলটি করেন দেনিস সুয়ারেস। ডি-বক্সের বাইরে থেকে মেসির সোজাসুজি পাস ধরে একটু এগিয়ে কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন এই স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। এরপরই একসঙ্গে মেসি, সুয়ারেজ, রাকিতিচ, বুসকেটস, আলেইশ ভিদাল ও জেরার্ড পিকেকে তুলে নেন কোচ ভালভেরদে। ৮৯ মিনিটে স্পটকিকে বল জালে পাঠাতে ব্যর্থ হন পাকো আলকাসের। ডি-বক্সের মধ্যে নেলসন সেমেদো ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টিটা পেয়েছিল বার্সেলোনা। প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ গাম্পের ট্রফির গত সংস্করণে ইতালির ক্লাব সাম্পদোরিয়াকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল বার্সেলোনা।

উল্লেখ্য, গত নভেম্বরে কোপা সুদামেরিকানার ফাইনালের প্রথম লেগে কলম্বিয়ার অ্যাথলেটিকো ন্যাসিওনালের বিপক্ষে খেলতে মেদেলিন যাওয়ার পথে বিধ্বস্ত হয় শাপেকোয়েনসের খেলোয়াড়-কর্মকর্তা বহনকারী বিমানটি। ওই দুর্ঘটনায় মারা যায় ৭১ জন যাত্রী। এদের মধ্যে ছিলেন ক্লাবটির ১৯ জন খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও স্টাফ। মাত্র তিন জন খেলোয়াড় প্রাণে বেঁচে যান। প্রাণ হারানো সবার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ব্রাজিলের ক্লাবটিকে আমন্ত্রণ জানায় বার্সেলোনা।

"