বিতর্ক নিয়ে ভাবছেন না নাসির

প্রকাশ : ১৭ জুলাই ২০১৭, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

নানা কারণে বাংলাদেশের ক্রিকেটে আলোচিত নাম নাসির হোসেন। মাঠে এবং মাঠের বাইরে বরাবরই আলোচনায় থাকেন ‘ফিনিশার খ্যাত’ এ অলরাউন্ডার। তবে সব আলোচনা যে ইতিবাচক তা-ও নয়, বেশ কিছু নেতিবাচক কারণেও অনেকবার সংবাদের শিরোনাম হয়েছেন এই অলরাউন্ডার। মাঠের বাইরে এবং মাঠের ভেতরে বেশ কিছু কর্মকা- নিয়ে বিতর্ক আছে। যে কারণে পারফরম্যান্স এবং সমর্থকদের চাপের পরও বারবার দলের বাইরে থাকতে হয়েছে তাকে। গুঞ্জন আছে, শৃঙ্খলাজনিত কারণে তাকে পছন্দ করেন না প্রধান কোচ হাথুরুসিংহেও। এমনকি তাকে বিসিবি সভাপতিও নেতিবাচক বক্তব্য দিয়েছিলেন গণমাধ্যমের সামনে। তবে এসব নিয়ে নাসির খুব বেশি চিন্তিত নন মাশরাফির পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবচেয়ে জনপ্রিয় এই ক্রিকেটার।

গতকাল রোববার মিরপুর স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালেও একই ধরনের কথা বলেছেন তিনি। নাসির বলেন, ‘যাদের নাম হয় (সুনাম) তাদের বদনামও হয়। এটা সত্য কথা। কেউ আমাকে এক চোখে দেখবে আরেকজন আমাকে আরেক চোখে দেখবে-এটাই স্বাভাবিক। আর ফেসবুক বলেন, পত্রিকা বলেন সত্যি বলতে আমি এগুলো অনুসরণ করি না। ক্রিকেট খেললে এসব মাথায় রাখা উচিত না। খেলার বাইরে মাঝে মাঝে কথাগুলো মাথায় আসে। তবে মাঠে খেলতে গেলে এগুলো মাথায় থাকে না।’

শৃঙ্খলাজনিত কারণে নানা সময়ে বিতর্কের জন্ম দিলেও নাসিরের ভক্ত সংখ্যা বরাবরই ঈর্ষণীয়। ভক্তরা কোনো কোনো ক্ষেত্রে নাসিরের দলে না থাকা নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন। তাকে দলে না নেওয়ার পেছনে প্রধান নির্বাচক থেকে শুরু করে বোর্ড সভাপতির ভূমিকা আছে বলে মনে করেন নাসিরের ভক্তরা। বিষয়গুলো নাসিরের কেমন লাগে জানতে চাইলে তিনি বলেছেন, ‘জনপ্রিয়তা! আমি জানি না কেনও মানুষ আমাকে ভালোবাসে। এটা মানুষের কাছ থেকে আমার বড় পাওয়া। এ জিনিসটা সবাই হয়তো পায় না। আমি তাদের কাছে অনেক কৃতজ্ঞ। তারা আমার ওপরে যে বিশ্বাস রাখে, অনেক আশা করে আমি চেষ্টা করব সেই বিশ্বাস ও আশার বাস্তবায়ন ঘটাতে। চেষ্টা করছি ফের জাতীয় দলে ঢুকে যাতে নিয়মিত হতে পারি।’

তবে জাতীয় দলে আসা-যাওয়ার মধ্যে থাকায় নাসির নিজেও জানেন, নিজের জায়গা ফিরে পেতে কতটা ঘাম ঝরাতে হবে তাকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে থিতু হতে কতটা প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখোমুখি হতে হবে। সেসব মাথায় রেখেই ‘সিরিয়াস’ অনুশীলনে নিজেকে প্রস্তুত করছেন এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার।

এক সময়ে একাদশে নিশ্চিত ছিলেন নাসির। ইদানীং একাদশ তো দূর, দলে থাকতেই কঠিন লড়াইয়ের মধ্যে পড়তে হয় তাকে। ১৭ টেস্টের শেষটি খেলেছেন দুই বছর আগে।

ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের শেষ আসরে রানের দেখা পেয়েছেন নাসির। ৮ ম্যাচে মাত্র একবার আউট হওয়ায় তার রান আর গড় একই ২২৬। করেছেন দুটি শতক, তার একটি লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে তার সেরা অপরাজিত ১৩৪ রান। নাসিরের বিশ্বাস এমন পারফরম্যান্সেই দলে তাকে জায়গা করে দেবে, ‘এতটুকু বিশ্বাস আছে, আমি যেভাবে খেলছি সেভাবে খেলতে পারলে অবশ্যই, অবশ্যই জাতীয় দলে ঢুকব।’

‘অনেক দিন ধরে দলের বাইরে (আছি), এটা সত্য কথা..তবে লক্ষ্য তো ওভাবে করি না যে আমি এটা করব, ওটা করব। দলের সঙ্গে এখন অনুশীলন করছি, এটাই এখন আমার সব থেকে বড় কাজ। দলে ফেরার জন্য আমি সিরিয়াস অনুশীলন করছি। দলে ঢোকার ব্যাপারটি আমাদের হাতে নেই। তবে আমার করণীয় যা তা আমি করছি।’

দলে অনেক স্পিনিং অলরাউন্ডার যুক্ত হওয়ায় অনেকে ভাবছেন নাসিরের পরীক্ষাও এখন বেশ কঠিন। তবে ব্যক্তিগতভাবে কারোর সঙ্গে প্রতিযোগিতা থাকার কথা উড়িয়ে দিলেন নাসির। নাসির বলেন, ‘আমি মনে করি না, (জাতীয় দলে খেলার জন্য) আমার কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী আছে। কিংবা জাতীয় দলে কেউ কারো প্রতিদ্বন্দ্বী। এখন ওরা ভালো খেলছে, দোয়া করি যেন জাতীয় দলে যারা আছে তারা আরো ভালো খেলে। জাতীয় দলের জায়গা সবার জন্য এবং সব সময়ই উন্মুক্ত থাকবে। ভালো খেললে সুযোগ অবশ্যই আসবে।’

এখন হয়তো সুযোগ নেই, কিন্তু সামনে সুযোগ এলে যেন হারাতে না হয় তার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছেন নাসির, ‘আমার অনেক জায়গায় ঘাটতি আছে, সেটা আমি জানি। আমার টিমমেটরা জানে, কোচিং স্টাফরা জানেন। এ জিনিসটা আমি শেয়ার করতে চাচ্ছি না। কারণ, আমি চাই না আমার দুর্বলতা (প্রতিপক্ষের) কেউ জানুক।’

‘ফাস্ট বোলিংয়ের বিপক্ষে দুর্বলতার যে কথাটা আসছে আমি কিন্তু দেশের বাইরেও রান করছি। সেটা বয়সভিত্তিক দল বলেন, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বলেন-সব ক্ষেত্রেই কিন্তু রান করেছি। আমি জানি না এ কথা কে বলেছে। আমার মনে হয়, এটা তার ব্যক্তিগত মত।’

ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং-তিনটাই সমানভাবে উপভোগ করা অলরাউন্ডার চেষ্টা করছেন সবদিকে সমান ধার ধরে রাখছে। তবে তার বিশেষত্ব ফিনিংশিয়ে। সেখানেও নিজেকে প্রমাণ করতে চান নাসির, ‘আমি মনে করি, আমার জন্য জাতীয় দলের সেরা ব্যাটিং পজিশন ছয় নম্বর। আমার জন্য এটা সুইটেবল। প্রিমিয়ার লিগে ওপরে ব্যাটিং করি..ওখানে ছয়ে ব্যাটিং করলে বড় কিছু করার সুযোগ থাকে না। জাতীয় দলে আমার জন্য ছয় নম্বর জায়গা ঠিক আছে।’

"