উদ্বিগ্ন নন ইমরুল

প্রকাশ : ১৪ জুলাই ২০১৭, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ইমরুল কায়েসের ক্যারিয়ারটা দীর্ঘদিনের। কিন্তু জাতীয় দলের একাদশে এখন অবধি পায়ের তলার মাটি শক্ত করতে পারেননি। উদ্বোধনী জুটিতে তামিম ইকবালের সঙ্গী হতে একটা সময় এনামুল হক বিজয়ের সঙ্গে লড়াই করেছিলেন তিনি। ইমরুলকে এখন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হচ্ছে সৌম্য সরকারের সঙ্গে।

সবশেষ কয়েকটি স্কোয়াডে বাংলাদেশ দলের সঙ্গে ছিলেন ইমরুল। কিন্তু একাদশে সুুযোগ পেয়েছেন খুব কমই। ২০০৮ সালে অভিষেক হওয়ার পর থেকে যতটুকু সুযোগ পেয়েছেন চেষ্টা করেছেন সামর্থ্যরে সবটুকু উজাড় করে দিতে। তবে ওপেনিংয়ে খেলার সুযোগটা বোধহয় আপাতত পাচ্ছেন না ইমরুল। তাকে তিন নাম্বার ব্যাটিং পজিশনে খেলানের পরিকল্পনা আছে দলীয় ম্যানেজমেন্টের।

জাতীয় দল থেকে ছিটকে যাওয়ার পর ঘরোয়া ক্রিকেটে ব্যাট হাতে দ্যুতি ছড়িয়েছিলেন ইমরুল। দলে ফেরার সময় ফর্মটা বয়ে এনেছিলেন তিনি। কিন্তু অতর্কিত চোট আবারো তাকে মাঠের বাইরে ছিটকে দেয়। সুযোগটা কাজে লাগান রানখরায় ভুগতে থাকা সৌম্য। বাঁ-হাতি এই ওপেনারের উপরই আস্থা রাখছে টিম ম্যানেজমেন্টের। তবে সুযোগ দেওয়ার কথা ভাবছেন আরেক বাঁ-হাতিকেও। কিন্তু এসব নিয়ে মোটেও উদ্বিগ্ন নন ইমরুল। নিজের কাজটা করে যেতে চান ঠিকঠাক। কাল ফিটনেস ক্যাম্প শেষে গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘যখনই আমি সুযোগ পেয়েছি, চেষ্টা করেছি আমার কাজটা ঠিকভাবে করার। টিম ম্যানেজমেন্ট হয়তো আমাকে নিয়ে ভিন্ন কিছু চিন্তা করছে, এই কারণে হয়তো নিয়মিত হতে পারছি না।’

দলে থিতু হতে পারলে পারফরম্যান্সটা আলো ভালো পতে পারত বলে মনে করছেন ইমরুল। বলেছেন ‘দলে নিয়মিত হতে পারলে আমার পারফরম্যান্সটা অন্য রকমও হতে পারতো।’ একাদশে নিয়মিত হতে পারার প্রভাবটা যে পারফরম্যান্সে পড়ছে সেটা মানছেন ইমরুল, ‘এটা অবশ্যই, প্রভাব ফেলে। এটা শুধু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে না, যে কোনও ক্রিকেটেই হতে পারে। হুট করে একটি ম্যাচ মাঠে নামলে কাজটা কঠিন হয়ে যায়। তবে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে এটার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া ভালো।’

এ মাসের শেষ দিকে বাংলাদেশ সফরে আসার কথা অস্ট্রেলিয়ার। অজিদের সঙ্গে ঘরের মাঠে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। কন্ডিশনের কারণে সিরিজে নিজেদেরকেই এগিয়ে রাখলেন ইমরুল। বলেছেন, ‘আমাদের কন্ডিশনে আমরা টেস্ট, ওয়ানডে- দুই ফরম্যাটেই ভালো খেলছি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ সিরিজে আমরা এই ধরনের কন্ডিশনে ভালো খেলেছি। যতটুকু মনে হয়, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে একই কন্ডিশনে আমাদের খেলতে হবে। আমরা মানসিকভাবে সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

"