হাই পারফরম্যান্স দলের অস্ট্রেলিয়া সফর

প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৭, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

জাতীয় লিগে দারুণ পারফরম্যান্সের পর আলোচনায় আছে অনেকেই। কিন্তু অনেক দিন ধরেই খেলার বাইরে আছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। তাই ফর্মে থাকা খেলোয়াড়দের যাচাই করার কোনো সুযোগ থাকছে না। সে কারণেই আপাতত জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া আর উঠে আসা খেলোয়াড়দের পরীক্ষা করে নেওয়ার মঞ্চ হাই পারফরম্যান্স দল। এনামুল হক, লিটন দাস, আবুল হাসান, মেহেদী মারুফদের মতো জাতীয় লিগে দুর্দান্ত পারফর্ম করা তারকাদের নিয়ে শক্তিশালী একটি হাই পারফরম্যান্স দল অস্ট্রেলিয়া সফর করবে।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। তিনি জানিয়েছেন, অস্ট্রেলিয়া সফরে বাংলাদেশ দল সব ম্যাচ খেলবে ডারউইনে। তিন দিনের ম্যাচের সঙ্গে খেলবে পাঁচটি ওয়ানডে। ‘আমরা ১৬ জনের একটা দল দিয়েছি, যারা অস্ট্রেলিয়া যাচ্ছে। আমরা দুটি জিনিস নিয়ে এখানে কাজ করছি, একটা ইমিডিয়েট রিপ্লেসমেন্ট, আরেকটা ডেভেলপমেন্ট স্কোয়াড। ওই হিসেবেই আমরা খেলোয়াড় দিয়েছি।’ ‘অভিজ্ঞ কিছু খেলোয়াড়কে ডেকেছি। তার মধ্যে এনামুল হক বিজয় আছে, মেহেদী মারুফ, লিটন দাস, আবুল হাসান আছে। কিছু প্রতিশ্রুতিশীল ক্রিকেটারও আছে। ভালো একটা কম্বিনেশন দাঁড় করিয়েছি। আশা করছি এখান থেকে ভালো একটা ফিডব্যাক পাবো। যেটা আমরা জাতীয় দল, “এ” দলে কাজে লাগাতে পারবো।’

ভেন্যু হিসেবে বেছে নেয় হয়েছে ডারউইনকে। এই ভেন্যুকে বেছে নেওয়ার পেছনে হয়েছে তার ব্যাখ্যা দিলেন সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল। ‘অস্ট্রেলিয়ায় যখন মৌসুম শেষ হয় তখন ডারউইনে মৌসুম শুরু হয়। তখন ওখানে অনেক খেলোয়াড় এসে খেলে। ওখান থেকে খেলোয়াড় বাছাই করে একটা দল গড়ে ওরা আমাদের সঙ্গে খেলবে।’ কদিন পরেই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। এরপর মাশরাফি বিন মর্তুজা-মুশফিকুর রহিম-সাকিব আল হাসানের দল যাবে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে। সামনে আছে আরো অনেক খেলা। তার আগে কিছু খেলোয়াড়কে দেখে নিতে চান নির্বাচকরা।

‘হোমে টেস্ট ম্যাচ আছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় তিন ফরম্যাটের খেলা আছে। বড় সিরিজ আছে ব্যাক টু ব্যাক। সে হিসাব মাথায় রেখেই কিছু খেলোয়াড়কে দেখবো।’

১০ জুলাই জাতীয় দলের ফিটনেস ক্যাম্পের জন্য ২৯ জনের দল দেবেন নির্বাচকরা। আগস্ট-সেপ্টেম্বরে স্টিভেন স্মিথদের বিপক্ষে দেশের মাটিতে দুটি টেস্ট খেলবে মুশফিকের দল।

‘ইমিডিয়েট রিপ্লেসমেন্ট কিছু দরকার আছে (জাতীয়) দলে। ওইগুলো যেন আমরা পরিপূর্ণ করতে পারি। সঙ্গে আগামী ১-২ বছরের মধ্যে আমরা কিছু খেলোয়াড়কে জাতীয় দল, “এ” দলের জন্য চাই।’

"