মন্দায় ব্যয়বহুল হবে কাতার বিশ্বকাপ

প্রকাশ : ২৩ মে ২০২০, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

মন্দার কারণে অনেক ব্যয়বহুল হতে পারে কাতার বিশ্বকাপ। এমন শঙ্কার কথা জানিয়েছেন আয়োজক কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাসান আল থাওয়াদি। তবে সমর্থকেরা যাতে স্বল্প খরচে কাতার এসে বিশ্বকাপ উপভোগ করতে পারেন, সেজন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি। এছাড়াও বিশ্বকাপ চলাকালীন সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে কাজ করা হবে বলেও জানান থাওয়াদি।

অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে ২০২২ ফিফা বিশ্বকাপের আয়োজক স্বত্ত্ব পায় কাতার। সে সময় এর বিরোধিতাও করেছিল অনেকে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির বিরুদ্ধে উঠেছিল দুর্নীতির অভিযোগও। তবে সব প্রতিকূলতা পাশ কাটিয়ে বিশ্বকাপের সফল আয়োজক হতে নিজেদের কাজগুলো সম্পন্ন করছে কাতার। ইতোমধ্যেই একাধিক স্টেডিয়ামের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। সবার সঙ্গে পরিচয় করে দেওয়া হয়েছে বিশ্বের প্রথম সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ফুটবল স্টেডিয়ামকে।

তবে মাঠ ব্যবস্থাপনা থেকে শুরু করে অবকাঠামোগত উন্নয়ন কিংবা নির্বিঘœ যাতায়ত সুবিধা নিশ্চিত করাসহ সব কাজই যখন চলছিল ঠিক ঠাক, তখনই দেশটিকে ধাক্কা খেতে হলো করোনাভাইরাসের কাছে। এর ফলে কাজে তো বিঘœ ঘটছেই, একই সঙ্গে সব কিছুর খরচ বেড়ে যাচ্ছে কয়েক গুণ। যাতে বিশ্বকাপে সাধারণ দর্শকদের ব্যয়ভার বহন করা নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়।

বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাসান আল থাওয়াদি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে গোটা পৃথিবীতেই একটা মন্দাভাব চলছে। কাতারও এর বাইরে নয়। এখানে যে কাজগুলো হচ্ছে, তার খরচ বেড়ে গেছে কয়েক গুণ। তাছাড়া লকডাউনের কারণে অনেক কিছুই সময় মত করা যাচ্ছে না। তাই খরচ নিয়ে আমাদের ভাবতে হচ্ছে। যেহেতু একটা মন্দাভাব আছে, আমার মনে হয় একটা নেতিবাচক প্রভাব পড়বে কাতারে ম্যাচ দেখতে আসা সমর্থকদের ওপর। তবে সেটা যাতে খুব বেশি না হয়, এ বিষয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

এদিকে, যেভাবে পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯ সংক্রমণ, তাতে কবে ভাইরাসটি নির্মূল হবে সেটিই এখন বড় প্রশ্ন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তো কদিন আগে বলেই দিয়েছে, হয়তো এ ভাইরাস কখনো নির্মূল করা সম্ভব হবে না।

অণুজীবটির প্রভাবে ইতোমধ্যেই পিছিয়ে গেছে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ। বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বিভিন্ন ফুটবল লিগ। এমন অবস্থায় কাতার বিশ্বকাপ নিয়ে বেশ সাবধানী অবস্থানে আয়োজক কর্তৃপক্ষ। থাওয়াদি আরো বলেন, ‘করোনাভাইরাস যেভাবে ছড়িয়ে পড়েছে তাতে বলা মুশকিল কবে সব কিছু স্বাভাবিক হবে। তাই সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সেটা যতদিন এই ভাইরাস নির্মুল না হয় ততদিন পর্যন্ত এবং কাতার বিশ্বকাপেও এটা আমরা কঠোরভাবে মেনে চলব।’

সূচি মোতাবেক ২০২২ সালের ২১ নভেম্বর বিশ্বকাপ শুরু হয়ে চলবে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত। কাতারের ৫ শহরের ৮টি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের ম্যাচগুলো।

 

"