টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ বাতিলের প্রস্তাব

প্রকাশ : ১৮ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ও ওয়ানডের দুই বছর মেয়াদি লিগ বাতিলের আহ্বান জানিয়েছে ক্রিকেট বোর্ডগুলো। বিশ্ব ক্রিকেটের ৩ মোড়ল- ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই), ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) ও ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) নেতৃত্বে বেশ কিছু বোর্ড আইসিসিকে বলেছে করোনাভাইরাসের কারণে যেহেতু বেশ কিছু নির্ধারিত সিরিজ বাতিল হয়ে গেছে, এ অবস্থায় আগামী দুই বছরের জন্য যে ওয়ানডে লিগ ও টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ চালু করা হয়েছিল তা বাতিল করা হোক।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, আইসিসিকে ভবিষ্যৎ সফর পরিকল্পনা (এফটিপি) ঢেলে সাজানোরও আহ্বান জানিয়েছে বোর্ডগুলো। এ প্রস্তাবে অবশ্য ইসিবিই সবচেয়ে বেশি উৎসাহ দেখিয়েছে। আইসিসির সঙ্গে বোর্ডগুলোর এ আলোচনা দুই সপ্তাহ আগেই হয়েছে। মার্চে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে যে গভর্নর কমিটির মিটিং হয়েছিল, সেখানেই এসব প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। টাইমস অব ইন্ডিয়াকে এক প্রশাসক বলেছেন, ‘এ নিয়ে আলোচনা চলছে। আইসিসির পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কোনো দিক নির্দেশনা পাওয়া যায়নি এখনো।’

করোনার কারণে ক্রিকেটে অদূর ভবিষ্যতের সব সূচিই বাতিল হতে বসেছে। এর ফলে দ্বিপাক্ষিক অনেক সিরিজই হুমকির মুখে পড়েছে। এর মাঝে আইসিসি নির্ধারিত টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ও ওয়ানডে লিগ চালু থাকলে পরবর্তী অনেক দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আর আলোর মুখ দেখার সুযোগ পাবে না।

আগামী বছর আইপিএলের মিডিয়া স্বত্ব নতুন করে নিলামে উঠবে। আইসিসিও ২০২৩-৩১ সালের মিডিয়া স্বত্ব বিক্রির অপেক্ষায় থাকবে একই সময়ে। ইসিবি ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াও নিজদের স্বত্ব বিক্রি করবে নতুন চুক্তিতে। ফলে দ্বিপক্ষীয় সিরিজগুলো বেশ লোভনীয় হয়ে উঠবে এই তিন দেশের জন্য। ধনী বোর্ডগুলোর জন্য এ অবস্থায় আইসিসির বাধ্যতামূলক সিরিজগুলোয় অংশ নেওয়া আর্থিকভাবে লাভজনক নয়। এক সূত্র জানিয়েছে, আইসিসি আরো বেশি বৈশ্বিক টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে চাইছে। এর ফলে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ আয়োজনের সময় কমে যাবে। মিডিয়া স্বত্ব থেকে যে বোর্ডগুলো ভালো আয় করে, তারা কখনই এতে রাজি হবে না।

বর্তমানে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চালু আছে ক্রিকেটে। সেই সঙ্গে দুই বছরে একটি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ চালু করা হয়েছে। ওয়ানডে লিগকে বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব হিসেবে ব্যবহার করবে আইসিসি। এরই মাঝে ২০২০ সাল থেকে প্রতি বছর অন্তত একটি বৈশ্বিক টুর্নামেন্ট চালু করতে চাইছে আইসিসি। এর জন্য নতুন একটি টুর্নামেন্ট শুরু করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে। ধনী বোর্ডগুলোর জন্য এসব টুর্নামেন্ট মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠতে পারে।

 

"