জামিনে মুক্ত রোনালদিনহো

প্রকাশ | ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

৬ মাসের জন্য কারাগারে পাঠানো হয়েছিল তাকে। তবে ৩২ দিন অতিবাহিত হওয়ার পর জামিন পেলেন ব্রাজিলিয়ান ফুটবল কিংবদন্তি রোনালদিনহো। ছাড়া পেয়েছেন তার ভাই রবার্তোও। পরশু প্যারাগুয়ের জেল থেকে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে। তবে জামিন পেতে ১.৩ মিলিয়ন ডলার (১৪ কোটি টাকা) মুচলেকা দিলেও আপাতত প্যারাগুয়ের রাজধানী আসুনসিওনের একটি হোটেলে বন্দি অবস্থায় থাকতে হবে দুজনকে।

মামলা পুরোপুরি শেষ হওয়ার আগে রোনালদিনহো ও রবার্তোর পালিয়ে যাওয়ার শঙ্কা থাকায় স্থানীয় প্রশাসনের কাছে ১.৩ মিলিয়ন ডলার ‘বন্ধক’ রাখা হয়েছে। অবশ্য এর আগেও বেশ কয়েকবার বড় অংকের মুচলেকা দিতে চেয়েও জামিন মেলেনি তাদের। রোনালদিনহোর আইনজীবী অ্যাডলফো মারিন সে সময় জানিয়েছিলেন, তার মক্কেল বড় তারকা বলেই এমনটা করা হয়েছে।

ভুয়া কাগজপত্র নিয়ে প্যারাগুয়েতে প্রবেশ করায় গত ৬ মার্চ রোনালদিনহোকে আটক করেছিল সে দেশের পুলিশ। ৪০ বছর বয়সি এই ফুটবল জাদুকর ও তার ভাই জাল পাসপোর্ট তৈরি করেছিলেন। যে কারণে প্যারাগুয়ের আদালত তাদের ৬ মাস কারাদ- দেন। পরে তার আইনজীবী রোনালদিনহোকে জেলে পাঠানোর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেন। আদালতে আপিল করার পর অবশেষে বিচারক গুস্তাভো আমারিয়া তাকে জেল থেকে জামিনে মুক্তি দেওয়ার রায় দেন।

রোনালদিনহো ও তার ভাই যে প্রতিষ্ঠানটির শুভেচ্ছা দূত হিসেবে প্যারাগুয়েতে গিয়েছিলেন, তারাই তাদের উপহার হিসেবে সে দেশের পাসপোর্ট দিয়েছিলেন। কিন্তু বিষয়টি তাদের অজানা ছিল। সেটা আদালতে প্রমাণ করতে পেরেছেন রোনালদিনহোর আইনজীবী। সেক্ষেত্রে খুব শিগগিরই তারা নিঃশর্ত মুক্তি পেতে পারেন বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে খবর চাউর হয়েছে। প্যারাগুয়ের একটি ক্যাসিনো মালিক নেলসন বেলোত্তির আমন্ত্রণে রোনালদিনহো ও তার ভাই দেশটিতে যান। একটি দাতব্য সংস্থার শুভেচ্ছা দূত হিসেবে কাজ করার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল তাদের। বর্তমানে বিশ্বকাপজয়ী ব্রাজিলিয়ান তারকার কাছে তার দেশের পাসপোর্টও নেই। বছর দুয়েক আগে তার পাসপোর্ট জব্দ করে ব্রাজিলিয়ান সরকার। লেক গুয়াইবাতে অনুমোদন না নিয়ে একটি চিনির কল বানানোয় তাকে ২৩ লাখ ডলার জরিমানা করা হয়েছিল। জরিমানার অর্থ দিতে না পারায় পাসপোর্ট জব্দ করা হয় রোনালদিনহোর।

"