বাড়ছে নজরদারি

থাকছে দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করে সাকিব আল হাসান নিষিদ্ধ হওয়ায় সতর্কতার পথ অবলম্বন করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এবার বঙ্গবন্ধু বিপিএলে তাই প্রতি দলের সঙ্গেই নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে একজন করে দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা। আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে থাকছে বাড়তি নজরদারিও।

গত বিপিএলে চিটাগং ভাইকিংসের লজিস্টিক ম্যানেজার শাকিল আবেদিন চট্টগ্রামের চার ক্রিকেটারকে দল পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সেটা অবশ্য স্পট ফিক্সিং জাতীয় কিছু নয়। তবুও বিষয়টি নজরে এনে তাকে নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে বিসিবি। এ ধরনের যেকোনো বিষয়সহ স্পট ফিক্সিংয়ের অন্ধকার ছোবল থেকে ক্রিকেটকে মুক্ত রাখতে বদ্ধ পরিকর বোর্ড।

কাল বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, এবার দুর্নীতি দমন ইউনিটে বাড়তি জোর দেওয়া হচ্ছে। সে লক্ষ্যে বাড়ানো হয়েছে বাজেট। তার ভাষ্য, ‘আগে থেকেই গুরুত্ব ছিল (নজরদারির বিষয়)। এখন আরো বাড়ছে। এবার প্রত্যেক দলের সঙ্গে এন্টি করাপশন ইউনিট কাজ করবে।’

বোর্ড প্রধান আরো জানান, স্পর্শকাতর হওয়ায় এই ব্যাপারে কোনোভাবেই নাক গলাবেন না তারা, ‘আমাদের এখানটায় এসিইউ আছে। তারা কথাবার্তা বলে নিয়োগ দিয়ে থাকে। আমরা জানিও না কে আসবে। এখানে প্রেফারেন্স দেওয়া হয় আগে এরকম অভিজ্ঞতা আছে এরকম কাউকে বা সেনাবাহিনীতে আছেন এমন কেউ হতে পারে। এটাতে কে আছেন আমরা জানতেও চাই না। কারণ আমরা তাদের স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ দিতে চাই।’

 

"