‘দ্বিতীয় বাড়িতে’ ফিরে উচ্ছ্বসিত মামুনুল

প্রকাশ : ১৩ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

২০১৪ আইএফএ শিল্ডে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের (এআইএফএফ) আমন্ত্রণ পায় শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। কলকাতার দুই জায়ান্ট মোহনবাগান ও ইস্ট বেঙ্গলকে হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছে যায় ঢাকার ক্লাবটি। যদিও শেষ পর্যন্ত শিরোপাটা উঁচিয়ে ধরা হয়নি। ঐতিহ্যবাহী মোহামেডানের বিপক্ষে টাইব্রেকারে হারতে হয়েছিল শেখ জামালকে, যে দলের নেতৃত্বে ছিলেন মামুনুল ইসলাম। টুর্নামেন্টজুড়ে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে কলকাতার ফুটবলপ্রেমীদের মন জয় করেছিলেন। এই কারণে ওই বছরই ইন্ডিয়ান সুপার লিগে (আইএসএল) অ্যাটলেটিকো ডি কলকাতায় সুযোগ পেয়ে যান চট্টগ্রামের ছেলে মামুনুল।

২০২২ বিশ্বকাপ ও ২০২৩ এএফসি এশিয়ান কাপের বাছাই পর্বে মঙ্গলবার ভারতের বিপক্ষে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। প্রতিবেশী দুই রাষ্ট্রের মাঠের লড়াই বসবে কলকাতার বিবেকানন্দ যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে (যা সল্টলেক স্টেডিয়াম হিসেবেও বেশ পরিচিত)। ম্যাচ খেলতে শুক্রবার রাতেই কলকাতা পৌঁছেছে লাল-সুবজরা। দলের সঙ্গে রয়েছেন মামুনুলও। কাল সকালে অনুশীলনেও অংশ নিয়েছেন এই অভিজ্ঞ ফুটবল। এরপর বাংলাদেশের একটি টেলিভিশন চ্যানেলের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। ৩০ বছর বয়সি মিডফিল্ডারের ভাষ্য, ‘লক্ষ্য আমাদের একটাই। ভারতের বিপক্ষে জয় ভিন্ন কিছুই ভাবছি না। যদি সুযোগ পাই দলের সিনিয়র খেলোয়াড় হিসেবে যতটুকু সামর্থ্য করার চেষ্টা করব।’

২০০৭ সালে অভিষেকের পর দেশের জার্সিতে ৭৫টি ম্যাচ খেলেছেন মামুনুল। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের এই ম্যাচে কলকাতায় খেলার অভিজ্ঞতা দারুণভাবেই কাজে লাগানোর কথা তার। ভারতীয়দের বিপক্ষে ২৩ সদস্যের দলে সবচেয়ে সিনিয়র সদস্যও তিনি, ‘প্রায় পাঁচ বছর পর কলকাতায় খেলতে এসেছি। অনেকের সঙ্গে দেখা হয়েছে। এখানকার ফুটবল সমর্থকরা আমাকে স্বাগত জানিয়েছে। এখনো জাতীয় দলের হয়ে খেলছি, তা দেখে অনেকেই বাহবা দিয়েছে।’ যদিও কাতার বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের গত দুই ম্যাচে মাঠে নামেননি সাবেক অধিনায়ক। তবে ভারতের বিপক্ষে ঢাকা আবাহনীর তারকার অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতেই পারেন প্রধান কোচ জেমি ডে।

কলকাতার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে মামুনুল ওই টিভি চ্যানেলকে বলেন, ‘এই শহরে আমার অনেক স্মৃতি রয়েছে। এটা আমার দ্বিতীয় বাড়ি বলতে পারেন। এখানে আসতে পেরে অনেক উচ্ছ্বসিত। আশা করি মঙ্গলবার ইতিবাচক একটা ফল পাব।’

 

"