কাদার রাজ্যেও কাতারে কাত

বাংলাদেশ ০-২ কাতার

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

সাহিদ রহমান অরিন

দশ দিনও হয়নি, বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ খেলতে এসে বাজেভাবে হেরেছে ভুটান। পরাজয়ের পর ভুটানিজ কোচ পেমা দর্জি কর্দমাক্ত মাঠকে দায়ী করে বলেছিলেন, ‘আমরা এ ধরনের মাঠে খেলতে অভ্যস্ত নয়। এমন মাঠে বাংলাদেশ কাতারকেও হারিয়ে দিতে পারে!’

পরশু বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপের বাছাইপর্বের ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে কাতারের কোচ ফেলিক্স সানচেজও কাদায় ঠাসা ভেজা মাঠে খেলা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। ফেলিক্সের চোখে-মুখে ‘কাদার শঙ্কা’ দেখে আড়ালে গিয়ে হয়ত মুচকি হাসি দিয়েছিলেন বাংলাদেশের কোচ জেমি ডে। কাতারিরা যে কৃত্রিম ঘাসে খেলে অভ্যস্ত। জেমি তাই কালকের মাঠের লড়াইয়ে শিষ্যদের দিয়ে সেই ফায়দাটাই তুলতে চেয়েছিলেন।

জামাল ভূঁইয়া-মামুনুল ইসলামের প্রত্যাশা অনুযায়ী কাল ঢাকায় বৃষ্টিও নেমেছে, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের মাঠকে করে দিয়েছে ‘কাদার রাজ্য’। সেটা দেখে আত্মবিশ্বাসের পারদ খানিকটা উঁচুতেই উঠেছিল লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের। কিন্তু কাতার যে ভুটান নয়- সেটা প্রমাণ করতেই নেমেছিলেন হাসান আল-হাইদোসের দল।

শেষ পর্যন্ত নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণে সক্ষমও হয়েছে এশিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। কাদার রাজ্যে তারা বাংলাদেশকে হারিয়েছে ২-০ গোলে। অবশ্য অতিথিরা ম্যাচ জিতলেও দারুণ লড়াই করেছে স্বাগতিকরা। বৃহস্পতির রাতের সেই লড়াইয়ে বাংলাদেশও গোল করার অন্তত তিনটি সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু কাতার পোস্টের কাছে নার্ভাসনেসটাই যেন পেয়ে বসে দেশি ফুটবলারদের। তাতেই গোলের বেশ কয়েকটি সুযোগ হাতছাড়া।

র‌্যাঙ্কিং, শক্তি এবং ফেভারিট তত্ত্ব¡ মিলিয়ে কাতার এই ম্যাচে হট ফেভারিট ট্যাগ নিয়েই নেমেছিল। জিতেছেও তারা। ম্যাচের ২৮ মিনিটের সময় প্রথম গোল পায় কাতার। দ্বিতীয় গোল করে তারা অতিরিক্ত সময়ে। দুটো গোলের ক্ষেত্র তৈরি হয় বাংলাদেশের রক্ষণভাগের ভুল বোঝাবুঝিতে। দুটো গোলই পায় কাতার ছোট ডি বক্সের ভেতর থেকে। ২৮ মিনিটে ম্যাচে প্রথম গোল করেন ইউসুফ আব্দুরিসাগ এবং ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে দ্বিতীয় গোল আসে কারিম বাউদিয়াফের পা ছুঁয়ে।

 

"