আচমকা ফাহিমের পদত্যাগ

বিসিবিতে ভাঙনের সুর

প্রকাশ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বিশ্বকাপে প্রত্যাশামাফিক ফল করতে না পারা, শ্রীলঙ্কায় গিয়ে নাকানি-চুবানি খাওয়া, ঘরের মাঠে আফগানিস্তানের কাছে একের পর এক অসহায় আত্মসমর্পণÑ সব মিলিয়ে ছন্নছাড়া দেশের ক্রিকেট। এ অবস্থায় চারদিক থেকে ছুটে আসছে সমালোচনার তির। তাতে বিদ্ধ হচ্ছেন খেলোয়াড় থেকে শুরু করে বোর্ড কর্তারাও। এমন সময় উড়ে এলো নতুন খবরÑ পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বিসিবির ন্যাশনাল গেম ডেভেলপমেন্টের ম্যানেজার নাজমুল আবেদিন ফাহিম।

চলতি মাস শেষেই বিসিবির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন হবে তার। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে যে কজন মেধাবী মানুষ যুক্ত আছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম এই ফাহিম। যখনই কোনো ক্রিকেটার অফ ফর্মে, তখনই পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। দিয়েছেন দীক্ষা। তাতে হয়েছে কাজও। ২০০৫ সালে বিসিবিতে যোগ দেন ফাহিম। টানা ১৪ বছর দেশের ক্রিকেটকে সেবা দিয়েছেন। হাই-পারফরম্যান্স স্কোয়াড ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। আর তাই সবার কাছে বেশ জনপ্রিয় তিনি। তবে বর্তমানে তার পরিচয়টা শুধু একজন ন্যাশনাল গেম ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার। কিন্তু সেটাও বেশ সীমাবদ্ধ, শুধু নারীদের ক্রিকেটে।

বর্তমান সময়ে দেশের নারীদের ক্রিকেটের উত্থানের মূল কারিগর এই ফাহিম। তার হাত ধরেই এশিয়ার সেরার মুকুটা পরেছিল সালমা-জাহানারারা। কিন্তু তার মেধার মূল্যায়ন করেনি বোর্ড। তাকে ঠিকঠাক কাজে লাগানোও হয়নি। অনেকের ধারণা, হয়তো বোর্ডের ওপর অভিমান করেই পদত্যাগ করলেন ফাহিম।

যদিও অভিমানে পদত্যাগের বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি। দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যমকে এই জ্যেষ্ঠ ক্রিকেট প্রশিক্ষক পরিষ্কার জানিয়েছেন, ব্যক্তিগত কারণে তার পক্ষে আর কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না। নাজমুল আবেদিন ফাহিম বলেন, ‘নোটিস পিরিয়ড মাথায় রেখে আমি চলতি মাসেই পদত্যাগের কথা বলেছি বোর্ডে। তাদের জানিয়ে দিয়েছি, এখন আর নারী ক্রিকেট দলের সঙ্গে কাজ করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।’

এমন উত্তরের পর পাল্টা প্রশ্নÑ যদি ছেলেদের গেম ডেভেলপমেন্টে নিয়ে যাওয়া হয় অথবা ক্রিকেট অপারেশনসে দেওয়া হয়, তাহলে কি কাজ করবেন? ফাহিমের সোজাসাপ্টা জবাব, ‘ওসব নিয়ে আমি ভাবছি না বা কোনো মন্তব্যও করতে চাচ্ছি না। আমি ব্যক্তিগত কারণে এখন আর ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে কাজ করতে চাচ্ছি না। এটাই শেষ কথা।’

 

"