কোমাকেও হার মানালেন কিংবদন্তি শুমাখার

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর রেসিং জগতের এক অন্ধকারাচ্ছন্ন দিন হিসেবেই লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। এই দিনই যে আল্পস পর্বতে মারাত্মক স্কি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছিলেন কিংবদন্তি ফর্মুলা ওয়ান চালক মাইকেল শুমাখার। তার বাঁচার আশাই ছেড়ে দিয়েছিলেন চিকিৎসক থেকে শুরু করে পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু লড়াকু শুমাখার শেষ নিঃশ্বাস ফেলেননি। টানা ৬ বছর ছিলেন কোমায়। এই সময়ে চিকিৎসকদের আপ্রাণ চেষ্টা ও চিকিৎসায় অল্প-বিস্তর সাড়া দিলেও এতদিন উল্লেখযোগ্য কোনো উন্নতি হয়নি তার।

তবে অবশেষে এলো খুশির খবর। জ্ঞান ফিরেছে শুমাখারের। মাত্র তিন দিন আগেই প্যারিসের জর্জেস পম্পিদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাকে। সেখানেই কার্ডিও ভাসকুলার সার্জেন ফিলিপ মেনাসের চিকিৎসায় সাড়া দিয়েছেন সর্বকালের সেরা গাড়ি চালক।

সর্বাধিক ৯১টি গ্রঁ প্রি ও ৭টি বিশ্বখেতাব জয়ের রেকর্ড রয়েছে শুমাখারের। অথচ এই মহান রেসারের জীবনেই আচমকা নেমে এসেছিল গভীর অন্ধকার। ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর স্কি দুর্ঘটনার ফলে মাথায় মারাত্মক আঘাত নিয়ে কোমায় চলে যান শুমি। এমন একজন রেসারের এভাবে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে যাওয়ার ঘটনা ক্রীড়াপ্রেমীদের মনেও গভীর ক্ষতের সৃষ্টির করেছিল।

সুইজারল্যান্ডের হাসপাতাল থেকে প্যারিসের হাসপাতাল, এরপর দীর্ঘদিন বাড়িতে রেখেই তার চিকিৎসা চলছিল। মূল দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন তার স্ত্রী কোরিনা শুমাখার। অতি সম্প্রতি তাকে ফের প্যারিসের জর্জেস পম্পিদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৫০ বছর বয়সি সাবেক জার্মান চালকের দেখাশোনায় নিযুক্ত এক নার্স জানিয়েছেন, ‘তার জ্ঞান ফিরেছে। আগের থেকে তিনি এখন অনেক ভালো আছেন।’ আর এই খবরের উচ্ছ্বসিত বহু রেসিংপ্রেমী। এখন পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠার অপেক্ষায় রয়েছেন শুমাখার ভক্তরা।

 

"