মাঠে গোয়েন্দার ভূমিকায় রশিদ

প্রকাশ : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

কাল সকালে বৃষ্টির দাপটে টিম হোটেল থেকে বেরোতেই পারেনি বাংলাদেশ দল। মাঠকর্মীরাও কেউ মাঠে অথচ, এই বৃষ্টির মধ্যে ছাতা মাথায় বেলা ১১টায় মাঠে হাজির আফগান অধিনায়ক। হাতে চায়ের কাপ, চোখ আকাশে।

বৃষ্টির মধ্যে পুরো মাঠ কয়েকবার চক্কর দিয়েছেন আফগান দলপতি ও কোচ। বেলা ১১টা ২০ মিনিটে সূর্যের আলোয় ঝলমল জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম। তার ৫ মিনিট পর রিজার্ভ আম্পায়ার, কিউরেটররের মাঠ দর্শন। তাদের ইশারায় বেলা ১১টা ৩৩ মিনিটে মাঠকর্মীরা মাঠে প্রবেশ করেন।

যখন পিচ কভার তোলার প্রস্তুতি, তখনই আবার এক পশলা বৃষ্টি। এই বৃষ্টিতে মাঠকর্মীরা দৌড়ে নিরাপদ স্থানে গেলেও আফগানিস্তানের ১ কোচ ২ ক্রিকেটারের গভীর দৃষ্টি পিচের দিকে।

গত মাসে বিকেএসিপিতে বাংলাদেশ ‘এ’ বনাম আফগানিস্তান ‘এ’ দলের ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে কিউরেটর এবং মাঠকর্মীদের গাফিলতিতে পিচে জমে থাকা বৃষ্টির পানি ঢেলে পড়েছে পিচের ওপর। জয় থেকে বঞ্চিত হয়ে আফগানিস্তান ‘এ’ দল করেছে রিপোর্ট। রিপোর্টের সত্যতা মিলেছে ম্যাচ রেফারির রিপোর্টে। সে কারণেই সন্দেহ অবিশ্বাস দানা বেঁধেছে আফগান দলের। অবধারিত জয় যেন হাতছাড়া না হয়ে যায়, সে জন্য সতর্ক আফগান দল পালাক্রমে মাঠকর্মীদের কাজ তদারকিকে রেখেছে চোখ। ম্যাচ রেফারি, ম্যাচ অফিশিয়ালরা পিচের ধারে-কাছেও নেই। অথচ যতক্ষণ পিচ কভার পুরোপুরি খোলা পর্যন্ত এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থেকেছে তারা।

জয় থেকে ৪ উইকেট দূরে থেকে জয় হাতছাড়া করবে কেন তারা। এদিকে জয়ের জন্য শেষ ৪ জুটির ২৬২ রান দুরূহ। ম্যাচ বাঁচাতে হলে পাড়ি দিতে হবে অবশিষ্ট সময়। সে কারণেই বৃষ্টিটা যেন কাম্য। পিচ কভার শেষ হওয়ার পর বাংলাদেশ দল ঠিক দুপুর ১২টা ২১ মিনিটে ঢুকেছে মাঠে।

১২টা ৩২ মিনিটে ম্যাচ অফিশিয়ালরা মাঠ পরিদর্শন শেষে বেলা ১টা থেকে ৫ম দিনের খেলা শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বৃষ্টি বিঘিœত এই দিনে খেলা শুরু হয়েছে ৪ ঘণ্টা ১০ মিনিট। খেলা চলে ৫টা ৩০ পর্যন্ত।

"