বাঁকা চোখে

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

অনলাইন ডেস্ক

অস্বাস্থ্যকর

মারিয়া শারাপোভা বিশ্ববাসীর কাছে যতটা রুশ ‘গ্লামার গার্ল’ হিসেবে পরিচিত, তার চেয়েও বেশি পরিচিত টেনিস খেলোয়াড় হিসেবে। অথচ সাবেক এই নাম্বার ওয়ান সাম্প্রতিক সময়ে নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন। শুধু টেনিস কোর্টেই নয়, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও তাকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। অন্য বিশ্বতারকারা যেখানে নিয়মিত সময় দেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয়, সেখানে শারাপোভাকে পাওয়া যায় না ফেসবুক অথবা টুইটারে।

অবশ্য পাওয়া যাবেই-বা কেন? এ টেনিস সুন্দরীর মতে, টুইটার হলো তার জন্য ‘অস্বাস্থ্যকর’ জায়গা। তাই তিনি টুইটারের বদলে ইনস্টাগ্রামকেই এগিয়ে রাখেন। ইনস্টাগ্রামে ছবি শেয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে সৃজনশীলতা আকৃষ্ট করে শারাপোভাকে।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে পাঁচবারের গ্র্যান্ডসø্যাম জয়ী শারাপোভা বলেন, ‘আমি ইনস্টাগ্রামকেই এগিয়ে রাখি। আমার মতে, এটা একটু বেশি সৃজনশীল। আসলে আমার ফোনে টুইটার বা ফেসবুক অ্যাপ নেই। আমি শুধু আমার টিমকে পোস্ট করার জন্য কন্টেন্ট দিয়ে দিই। আমার মতে, টুইটার এ মুহূর্তে খুব একটা অস্বাস্থ্যকর জায়গা।’

প্রচেষ্টা

সহজে হার মানার পাত্র নন লিওনেল মেসি। ইনজুরি আক্রান্ত পা নিয়ে বসে না থেকে কঠোর পরিশ্রম জারি রেখেছেন আর্জেন্টিনা ও বার্সেলোনা অধিনায়ক। ফিটনেস ফিরে পেতে জিমে ঘাম ঝরাচ্ছেন নিয়মিত, তাও পায়ে ব্যান্ডেজ নিয়েই! সে মুহূর্তের একটি ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। বার্সার হয়ে প্রাক-মৌসুম অনুশীলনে প্রথমবার নেমেই ডান পায়ের গোড়ালিতে চোট পান মেসি। যার কারণে দলের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাওয়া হয়নি ৩২ বছর বয়সি ফরোয়ার্ডের। গ্রীষ্মের ছুটি কাটিয়ে গেল ৫ আগস্ট ন্যু ক্যাম্পে বার্সা শিবিরে যোগ দেন মেসি। কিন্তু অনুশীলনে ডান পায়ে চোট অনুভব করায় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন তিনি। অবশ্য পরীক্ষার পর ডাক্তাররা জানিয়েছেন, মেসির চোট তেমন গুরুতর নয়। গ্রেড ওয়ান পর্যায়ে আছে আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকারের চোট।

লা লিগার নতুন মৌসুম শুরুর আগে যুক্তরাষ্ট্র সফরে রয়েছে তার সতীর্থরা। এদিকে, মৌসুমের শুরুতেই দলে ফেরার জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকা।

নিষেধাজ্ঞা

কদিন আগে আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসিকে তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ করেছে দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল ফেডারেশন (কনমেবল)। এবার ব্রাজিলের ফুটবলার গ্যাব্রিয়েল জেসুসকে আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে দুই মাসের জন্য নিষিদ্ধ করেছে সংস্থাটি।

ঘরের মাঠে ২০১৯ কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতে নেয় ব্রাজিল। পেরুর বিপক্ষে শিরোপা জয়ের রাতে রেফারির সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রতিবাদ ও অসদাচরণ করায় এমন শাস্তির মুখে পড়তে হয়েছে জেসুসকে। নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি এই ফরোয়ার্ডকে ৩০ হাজার ডলার জরিমানাও করা হয়েছে। অবশ্য শাস্তির বিরুদ্ধে সাত দিনের মধ্যে আপিল করতে পারবেন ম্যানসিটি তারকা।

কোপার ফাইনালে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়ার সময় বিপত্তি বাধিয়ে বসেন জেসুস। মাঠ ছাড়ার সময় ভিএআর বক্সে ধাক্কা দেন। ওই মুহূর্তে তার চোখে-মুখে স্পষ্ট ক্ষোভ দেখা যায়। যার কারণে এই শাস্তি পেতে হচ্ছে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারকে। সেপ্টেম্বরে কলম্বিয়া ও পেরুর বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল। নিষেধাজ্ঞার কারণে ম্যাচগুলো খেলতে পারবেন না ২২ বছর বয়সি তরুণ তুর্কি।

"