বিশ্বকাপের গ্যালারিতেই নতুন প্রেমিকার সন্ধান

প্রকাশ : ০৮ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল নিয়ে ধ্যান-মন-জ্ঞান ভারতের। এরই মধ্যে নাকি নিজের বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তুলে ফেলেছেন কংগ্রেস সংসদ সদস্য শশি থারুর। সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্তত এমনটাই গুঞ্জন।

সংসদের অধিবেশনের ফাঁকে এই কংগ্রেস সংসদ সদস্যকে দেখা গিয়েছিল এজবাস্টন স্টেডিয়ামে ভারত-ইংল্যান্ড ম্যাচ উপভোগ করতে। শুধু ম্যাচ বললে ভুল হবে, স্টেডিয়ামে এক ইন্দো-ইংরেজ তরুণীর সঙ্গও উপভোগ করতে। খেলা চলাকালীন একবার টিভির পর্দায় ওই তরুণীর সঙ্গে শশি থারুরের ছবিও ভেসে ওঠে। সেদিনের গোটা ম্যাচটাই একসঙ্গে দেখেছেন শশি ও ওই তরুণী। ম্যাচ চলাকালীন একে অপরের হাতে-হাত রেখে গল্প করতেও দেখা গেছে দুজনকে। তুলেছেন সুইট সেলফিও। যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেজায় শোরগোল-গুঞ্জন।

ভারতের প্রথম সারির রাজনীতিক শশি থারুর ব্যক্তিগত জীবনের জন্যও শিরোনামে এসেছেন একাধিকবার। এরই মধ্যে তিনবার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন তিনি। ৬৩ বছর বয়সি কংগ্রেস সংসদ সদস্যদের প্রথম বিয়েটি হয়েছিল তিলোত্তমা মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। সেটি ৮০-এর দশকে। প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে দুই সন্তানও রয়েছে থারুরের। দুজন প্রতিষ্ঠিত লেখক ও সাংবাদিক। প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর কানাডার এক কূটনীতিককে বিয়ে করেন থারুর। সে সময় তিনি কানাডাতেই ছিলেন। কিন্তু, দেশে ফেরার পর দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গেও বিচ্ছেদ হয়ে যায়। এরপর তিনি বিয়ে করেন ব্যবসায়ী সুনন্দা পুস্করকে। ২০১৪ সালে রহস্যজনকভাবে মারা যান সুনন্দা।

এজবাস্টনে বিরাট বাহিনী যখন ইংল্যান্ডের কাছে হারছিল, তখন শশি থারুর ব্যস্ত ছিলেন এই তরুণীর সঙ্গে। খোশগল্প, একসঙ্গে ছবি তোলা, জনসমক্ষে সবই করতে দেখা যায় তাদের। ওই তরুণী আসলে ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ব্যবসায়ী ডিয়ানা উপ্পল। ২০১২ সালে ‘মিস ইন্ডিয়া ইউকে’ নির্বাচিত হন তিনি। বেশকিছু রিয়্যালিটি শোয়েও অংশ নিয়েছেন ডিয়ানা। কাজ করেছেন কয়েকটি ছবিতেও। একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে যুক্ত তিনি।

আপাতত নেটিজেনরা মজেছে ডিয়ানার লাস্যে। শশি ও ডিয়ানার সম্পর্ক নিয়ে টীকা-টিপ্পনীও কম আসছে না। কেউ বলছেন, ‘তাদের তো অন্য রকম বিশ্বকাপ চলছে।’ কেউ বলছেন, ‘এজবাস্টনে একমাত্র ভারতীয় হিসেবে জিতেছেন থারুরই।’ আর কেউ বলছেন, ‘বিশ্বকাপের আসল ট্রফি পেয়ে গিয়েছেন থারুর।’

 

"