রোনালদোর মুকুটে আরেকটি পালক

প্রকাশ : ১১ জুন ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডস ভীষণ শক্তিশালী। তার ওপর ফাইনাল। তাতে কী? জিতলেই যে চ্যাম্পিয়ন। ঠিক তেমন ম্যাচে জিতেছে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। উয়েফা নেশনস লিগের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে তারা জয় পেয়েছে ১-০ গোলে। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে রোনালদোর এটা দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক শিরোপা। এর আগে ২০১৬ সালে ইউরো জিতেছিল রোনালদোর পর্তুগাল। দলের হয়ে একমাত্র গোলটি করেছেন গঞ্জালো গুয়েদেস। ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের বাইরেও ইউরোপের দেশগুলোকে নিয়ে এবারই প্রথম আয়োজন করা হয় উয়েফা নেশন্স লিগ। সেই অভিষেক আসরেই চ্যাম্পিয়ন পর্তুগিজ বাহিনী। রোববার রাতে পোর্তোর এস্টাডিও দো দ্রাগাওয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে আসরের ফাইনাল ম্যাচ। ফুটবলের শৈল্পিক লড়াইয়ের মিশেল ছিল আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে পরিপূর্ণ ফাইনালে। অভ্যাগত দর্শকদের ফুটবলের রূপ-রস-মাধুর্যের আবহে বিমোহিত করেছেন ড্রিবলিং-নৈপুণ্য দিয়ে। সেই অর্থে গোলের সুযোগ সৃষ্টি না হলেও আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে শেষ হয়েছিল প্রথমার্ধ।

এরপর দ্বিতীয়ার্ধেরও পেরিয়ে যায় ১৫ মিনিট। ছান্দিক-উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচ হলেও গোল নামক সোনার হরিণের দেখা মিলছিল না। চলছিল ৬০ মিনিটের খেলা। এ সময় অ্যাটাকিং হাফ থেকে বল নিয়ে এগিয়ে যান বার্নার্ডো সিলভা। প্রথম দফায় বক্সের মধ্যে গিয়ে নিজে চেষ্টা করেন শট নেওয়ার। কিন্তু নেদারল্যান্ডসের প্রতিরোধে তা বাধাগ্রস্ত হয়। কৌশল পরিবর্তন করে তিনি ব্যাকহিলের আলত ছোঁয়ায় বলটা ঠেলে দিয়েছেন পেছনে। সেই বলটি পেয়ে গঞ্জালো গুয়েদেস ধাঁধিয়ে দেওয়া জোড়ালো শটে গোলরক্ষককে বোকা বানিয়েছেন।

ম্যাচের মাত্র ৪৩ শতাংশ বল দখলের পজেশন ছিল পর্তুগালের। ৫৭ শতাংশ ছিল ডাচদের দখলে। তবে গোলে পোস্টে মোটের ওপর ১৮টি শট নিয়েছেন রোনালদো-পেপেরা। বিপরীতে ডাচদের শট মাত্র ৪টি।

এই ট্রফি জয়ের মাধ্যমে দেশের জার্সিতে রোনালদো আরো পেছনে ফেললেন লিওনেল মেসিকে। তার মুকুটে যে যুক্ত হলো আরেকটি পালক, যেখানে মেসি দেশের হয়ে কোনো শিরোপাই জেতেননি। অধিনায়ক হিসেবে উদ্বোধনী আসরেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন সিআর সেভেন। দেশকে এনে দিয়েছেন দুটি ট্রফি। অথচ মেসি এই জায়গায় পুরোপুরি ব্যর্থ। জাতীয় দলের হয়ে মেসির আর্জেন্টিনা তিনবার কোপা আমেরিকা ও একবার বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেও শিরোপা ছুঁয়ে দেখতে পারেননি। সূত্র : গোলডটকম, রয়টার্স

 

 

"