ফ্রান্সের হারের রাতে জার্মানি-ইতালির জয়

প্রকাশ : ১০ জুন ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

ঘরের মাঠে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে হারিয়েছে তুরস্ক। শনিবার ইউরো ২০২০ বাছাই পর্বের ম্যাচে তারা ২-০ গোলের ব্যবধানে ফরাসিদের হারিয়ে অঘটন ঘটিয়েছে। ফ্রান্সের বিপক্ষে তুরস্কের এটাই প্রথম জয়।

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের হোঁচটের রাতে জয় পেয়েছে সাবেক চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। ২-০ ব্যবধানে স্বাগতিক বেলারুশকে হারিয়েছে জোয়াকিম লোয়ের শিষ্যরা। অপর ম্যাচে প্রত্যাশিত জয় তুলে নিয়েছে আরেক বিশ্ব বিজেতা ইতালি। গ্রিসকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে তারা।

বিশ্বকাপ জয়ের পর ইউরোপ সেরার মঞ্চে চোখ রেখেছিল ফরাসিরা। সেই মিশনেই ২০২০ ইউরো বাছাই পর্বের লড়াইয়ে তুরস্কে গোত্তা খেয়েছে দিদিয়ের দেশম শিষ্যরা। শুরুতে একাধিক আক্রমণ করেও গোল হাতছাড়া হয় অতিথিদের।

গেল বছর রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলা নয়জনকে নিয়ে মূল একাদশ সাজিয়েছিলেন ফ্রেঞ্চ কোচ দিদিয়ের দেশম। কিন্তু শুরু থেকেই নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হন এমবাপ্পে-গ্রিজম্যান-পগবারা। বিপরীতে হুগো লরিসের কল্যাণে বেশ কয়েকটি সহজ সুযোগ নষ্ট করেছে তুরস্ক। নইলে জয়ের ব্যবধান আরো বাড়তে পারত।

ম্যাচের বয়স যখন ৩০ মিনিট, তখন উল্টো গোল খেয়ে বসে ফ্রান্স। ফ্রিকিক থেকে দারুণ হেডে স্বাগতিকদের এগিয়ে দিয়েছেন কান আয়হান। উত্তেজনার পারদ উপচে পড়ছিল ইউফ্রেটিস নদীর তীরের ফুটবলপ্রেমীদের। প্রথম গোল খাওয়ার ১০ মিনিটের ঘোর না কাটতেই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের স্তব্ধ করে আবারো গোল করে স্বাগতিকরা। প্রথমার্ধেই ২-০ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছে তুরস্ক। ফলে দ্বিতীয়ার্ধে ফ্রান্সের বর্ণিল রঙটা আরো ধূসর হয়েছে। দ্বিতীয়ার্ধে আরো ধারালো-পরিকল্পিত আক্রমণ ছিল তুরস্কের। গোলপোস্টের নিচে হুগো লরিস না থাকলে হয়তো আরো বড় পরাজয় হতো ব্লুদের।

ইউরো বাছাইয়ের লড়াইয়ে অন্য ম্যাচে বেলারুশের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল ফেভারিট জার্মানি। বরিসভ এরিনায় ম্যাচের ১২ মিনিটেই জার্মানরা এ গিয়ে যায় লিরয় সানের গোলে। সুযোগ পেয়েছিল বেলারুশও। কিন্তু কাজে লাগাতে পারেনি। ৬২ মিনিটে জার্মানির লিড দ্বিগুণ করে মার্কো রয়েস। ২-০ গোলের লিড নিয়ে ‘সি’ গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় স্থান নিশ্চিত করে জার্মানি।

বাছাই পর্বে সাবেক ইউরো সেরা ইতালিও জয় পেয়েছে এই দিন। তারা গ্রিসের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের বিপক্ষে জয় পেয়েছে ৩-০ গোলের ব্যবধানে। বারেল্লা-বনুচ্চির নৈপুণ্যে বাছাই পর্বে শতভাগ জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে রবার্তো মানচিনির শিষ্যরা।

 

"