পাকিস্তান-ভারত ম্যাচ মানেই আলাদা চাপ

প্রকাশ : ২৫ মে ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

ইংল্যান্ডে পা দিয়েই বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে নেমে পড়লেন বিরাট কোহলিরা। পরশু সকালে ওভালে পুরোদমে অনুশীলন করতে দেখা গেল ভারতীয় ক্রিকেটারদের। যেখানে হাজির ছিলেন অধিনায়ক কোহলি থেকে মহেন্দ্র সিং ধোনি।

অধিনায়ক কোহলি অবশ্য অনুশীলনের পরে চলে গেলেন সংবাদ সম্মেলনে। যেখানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের ‘বাউন্সার’ সামলাতে হলো ভারত এবং বাকি নয়টি দেশের অধিনায়ককে।

বিশ্বকাপে ভারত বনাম পাকিস্তানের ম্যাচ ১৬ জুন। কিন্তু লন্ডনে পা দিয়ে প্রথম দিনেই কোহলিকে পড়তে হলো ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে প্রশ্নের মুখে। কীভাবে দেখছেন ওই ধরনের একটা চাপের ম্যাচকে? প্রশ্নটা করা হয়েছিল ভারত, পাকিস্তান দুই দলের অধিনায়ককেই। কোহলি বুঝিয়ে দিয়েছেন, এই ম্যাচের আগে তিনি এবং তার দল হাল্কা মেজাজেই থাকতে চান। তিনি বলেন, ‘আমরা জানি, ভারত-পাকিস্তানের এই ম্যাচটার দিকে সবাই অধীর আগ্রহে তাকিয়ে থাকে। কিন্তু আমি আগে যে কথাটি বলেছি, তা আরো একবার বলব। এই ম্যাচ নিয়ে একজন ক্রিকেটার এবং একজন ক্রিকেটভক্তের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পূর্ণ আলাদা।’ এর পরে তিনি আরো বলেন, ‘মানছি, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে স্টেডিয়ামের পরিবেশটা সম্পূর্ণ অন্য ধরনের হওয়ায় একটা চাপ তৈরি হয়। কিন্তু সেটা মাঠে নামার আগে পর্যন্ত। খেলা শুরু হয়ে গেলে এটা বাকি ম্যাচগুলোর মতোই হয়ে দাঁড়ায়। যে ম্যাচটা জিততে আমরা মাঠে নামি।’

এ ধরনের ম্যাচের আগে মনোভাব কী রকম থাকে? কোহলির জবাব, ‘স্টেডিয়ামে ঢোকার সময় দর্শকদের উত্তেজনা ক্রিকেটারদেরও ছুঁয়ে যায়। কিন্তু একবার মাঠে নেমে পড়লে পেশাদারি মানসিকতা প্রাধান্য পেয়ে যায়।’

এরপর পাকিস্তানি অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদকেও এই ম্যাচ নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। জবাবে পাকিস্তানি অধিনায়ক শুধু বলেন, ‘এর বেশি আর কিছু বলতে চাই না। আমার উত্তরও একই।’

ভারত বুধবার ইংল্যান্ডে পা দিলেও পাকিস্তান এখানে রয়েছে বেশ কয়েক দিন। এরই মধ্যে প্রস্তুতিপর্বে সরফরাজের দল পাঁচটি ওয়ান ডে খেলেছে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে। সেখানে ০-৪ সিরিজ হারলেও পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানরা দেখিয়ে দিয়েছেন, তারা ছন্দেই আছেন। যে কারণে আত্মবিশ্বাসী শোনায় সরফরাজকে। তিনি বলেছেন, ‘আমরা ইংল্যান্ডে এর আগেও ভালো খেলেছি। তাই এবারও ভালো খেলার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।’

বিশ্বকাপের জন্য পাকিস্তান দলে ফিরিয়ে এনেছে তাদের দুই অভিজ্ঞ পেসারকে। মহম্মদ আমির এবং ওয়াহাব রিয়াজ। ওয়াহাব তো দুবছর পরে ওয়ান ডে জাতীয় দলে ফিরেছেন। এই দুই পেসারকে নেওয়া নিয়ে পাকিস্তানি অধিনায়ক বলেন, ‘অভিজ্ঞতার জন্যই আমির এবং ওয়াহাবকে দলে নেওয়া হয়েছে। ওয়াহাব জানে ইংল্যান্ডের পরিবেশে কীভাবে সাদা বলে বল করতে হয়। পাশাপাশি ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটারের ওপরে বল করে যেতে হবে।’

সদ্য সমাপ্ত ইংল্যান্ড সিরিজ নিয়ে সরফরাজ আরো বলেন, ‘ফল দেখলে মনে হবে, আমরা ভালো করতে পারিনি। কিন্তু ঘটনা হলো, দুই দলের মধ্যে তফাত করে দিয়েছে ফিল্ডিং। আমাদের ফিল্ডিং অত্যন্ত খারাপ হয়েছে। বিশ্বকাপে যা ঠিক করে নিতে হবে।’

 

"