ঢাকায় ইতালি-পর্তুগাল ম্যাচ নিয়ে ধোঁয়াশা

প্রকাশ | ২২ মে ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

২০২০ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। এ উপলক্ষে বেশ ঘটা করেই ক্রীড়া উৎসব পালন করার পরিকল্পনা করেছে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। সোমবার একটি টেলিভিশন চ্যানেলে খবর বেরোয়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকায় নাকি ইতালি ও পর্তুগালের মধ্যকার একটি প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। আর সে ম্যাচে খেলবেন বিশ্বসেরা তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। খবরটি স্বাভাবিকভাবেই আলোড়ন তুলেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও দেশের ফুটবল মহলে।

এ ম্যাচ হবে কি হবে না, তা ভবিষ্যৎই বলে দেবে। তবে আশ্চর্যের বিষয়, এ বিষয়ে কিছুই জানে না খোদ বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। যদিও বাফুফেও চায়, দুটি ইউরোপিয়ান দলকে নিয়ে এসে প্রীতি ম্যাচের আয়োজন করতে। সেটি জাতীয় দলও হতে পারে, হতে পারে বিখ্যাত কোনো ক্লাবও।

এ ব্যাপারে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ইতালি-পর্তুগাল ম্যাচ নিয়ে আমরা কিছুই জানি না। তবে ইউরোপের দুটি দল নিয়ে এসে প্রীতি ম্যাচ আয়োজনের লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। ভালো দুটি দলকে আনার চেষ্টা চলছে। আগামী বছর বিশ্বকাপ বাছাই পর্ব শুরু হবে। এ সময় জাতীয় দল আনা বেশ কঠিন। এক বছর বেশি সময় নয়। সবার সূচি ঠিক হয়ে থাকে। তবে ভালো দলই আনার চেষ্টা চলছে।’

যদিও মুজিববর্ষ উপলক্ষে বাফুফে তাদের যে কর্মসূচি ঠিক করেছে, তার মধ্যে প্রধান আয়োজন হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর নামে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ, বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ, বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট এবং দেশের সব জেলা নিয়ে বঙ্গবন্ধু জাতীয় ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ। এই চারটি টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য বাফুফে সরকারের কাছে বাজেট পেশ করেছে ৬৮ কোটি টাকা। এর বাইরে যদি ইউরোপের দুটি দেশ এনে প্রীতি ম্যাচ আয়োজন করতে পারে বাফুফে, তার জন্য খরচ হবে আলাদা।

আবু নাঈম সোহাগ জানান, তারা পাঁচটি দেশকে টার্গেট করেছেন। ফ্রান্স, ইতালি, জার্মানি, পর্তুগাল ও ইংল্যান্ডের যেকোনো দুটি দেশকে ঢাকায় আনার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে দেশের ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা। এ দেশগুলোর জাতীয় দল না হলেও সেরা দুটি ক্লাব এনেও একটি ম্যাচ খেলানোর পরিকল্পনা আছে বাফুফের।

এর আগে বাফুফে জানিয়েছিল, বঙ্গবন্ধুর নামে সাফ আয়োজনে অন্য দেশগুলোর মৌখিক সম্মতি পাওয়া গেছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সঙ্গে অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজনের ইচ্ছা আছে দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থার। এসবের বাইরে ‘মুজিব বর্ষে’ বঙ্গবন্ধুর নামে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ গেমস আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)।

 

"