সব ম্যাচ হারলেও বাংলাদেশ পাবে ৮৪ লাখ টাকা

প্রকাশ : ১৮ মে ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

৩০ মে পর্দা উঠবে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস বিশ্বকাপের। এবারের আসরে চ্যাম্পিয়ন দল পাবে চার মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৩ কোটি ৬৯ লাখ ৯২ হাজার টাকা! রানার্স-আপ দল পাবে দুই মিলিয়ন ডলার, যা ১৬ কোটি ৮৪ লাখ ৯৬ হাজার টাকা। কাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রাইজমানির পরিমাণ সম্পর্কে জানিয়েছে আইসিসি।

২০১৯ বিশ্বকাপে মোট প্রাইজমানির বাজেট ধরা হয়েছে ১০ মিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৮৪ কোটি ২৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা! ২০১৫ বিশ্বকাপের সংখ্যাটা ছিল একই। তবে সেবার বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে ১৪ দল। এবারের আসরটি ১০ দলের।

তবে গেল বিশ্বকাপের চেয়ে এবার চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স-আপের প্রাইজমানি বাড়ানো হয়েছে ২৫ শতাংশ। ২০১৫ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া পেয়েছিল ৩ দশমিক ৭৫ মিলিয়ন ডলার। ১ দশমিক ৭৫ মিলিয়ন ডলার পেয়েছিল রানার্স-আপ দল নিউজিল্যান্ড।

এ ছাড়া সেমিফাইনালিস্ট দলগুলো পাবে ৮ লখ ডলার (৬ কোটি ৭৩ লাখ ৯৮ হাজার ৪০০ টাকা)। আগের আসরের চেয়ে যা ২ লখ ডলার বেশি। ২০১৫ বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল থেকে বাদ পড়া দুই দল পেয়েছিল ৬ লাখ ডলার (৫ কোটি ৫ লাখ ৪৮ হাজার ৮০০ টাকা) করে। প্রথম রাউন্ড থেকে বাদ পড়া দলগুলো পাবে ১ লাখ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৮৪ লাখ ২৪ হাজার ৮০০ টাকার সমান। তার মানে সব কটি ম্যাচ হারলেও টাইগারদের অ্যাকাউন্টে জমা হবে ওই সমুদয় অর্থ।

২০১৯ বিশ্বকাপে প্রতিযোগিতা হবে রাউন্ড রবিন পদ্ধতিতে। অংশগ্রহণকারী ১০ দল লিগ পদ্ধতিতে খেলবে একে অপরের বিপক্ষে। ১৯৯২ বিশ্বকাপেও একই পদ্ধতিতে প্রতিযোগিতা হয়েছিল। ক্রিকেট বিশ্বের মর্যাদাকর এ আসর শুরু হবে ৩০ মে। ৪৬ দিনের লড়াই শেষ হবে ১৬ জুলাই।

প্রাইজমানি ছাড়াও আইসিসি ভাষ্যকার প্যানেলেরও ঘোষণা দিয়েছে। ২৪ সদস্যের এই প্যানেলে দেখা যাবে ক্রিকেটের সাবেক মহারথীদের।

 

"