তাসকিন-ফরহাদকে আয়ারল্যান্ড পাঠানোর মানেটা কী?

প্রকাশ : ১৬ মে ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

কোচিং স্টাফ-টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে ১৭ খেলোয়াড়ের বহর নিয়ে আয়ারল্যান্ডের উদ্দেশে উড়াল দিয়েছিল বাংলাদেশ দল। পরে দেশবাসীর ‘দাবি’র পরিপ্রেক্ষিতে সফরের দুই দিন আগে ফরহাদ রেজার সঙ্গে তাসকিন আহমেদকেও পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় বিসিবি। তাতে বিশ্বকাপের ১৫ জনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে স্কোয়াডটা উন্নীত হয় ১৯-এ।

ধারণা করা হচ্ছিল, বিশ্বকাপ স্কোয়াডের বাইরে থাকা চারজনকে চলতি তিন জাতির সিরিজের কোনো না কোনো ম্যাচে খেলার সুযোগ করে দেওয়া হবে। অথচ চার অতিরিক্ত খেলোয়াড়ের কারো এখনো খেলা হয়নি এই সিরিজে। ফাইনালে তাদের কারো সুযোগ মিলবে, সেটিও ভাবার সুযোগ নেই। তবে চারজন অতিরিক্ত খেলোয়াড় নেওয়ার যুক্তি কী?

তাসকিন আহমেদের কি ওই গানটা খুব মনে পড়ছে? ‘আশায় আশায় দিন যে গেল, আশা পূরণ হলো না...।’ শুধু তাসকিন কেন; ফরহাদ রেজা, ইয়াসির আলী, নাঈম হাসানেরও মনে পড়বে। বড় আশা নিয়ে হয়তো পা রেখেছিলেন ডাবলিনে। কিন্তু টিম হোটেল, মাঠে টুকটাক অনুশীলন আর সাইডবেঞ্চে বসে থাকা ছাড়া তাদের কপালে আর কিছুই জুটল না। কাল আইরিশদের বিপক্ষে নিয়ম রক্ষার ম্যাচেই যখন খেলা হয়নি, ফাইনালে তাদের খেলার সম্ভাবনা থাকে কী করে?

এখন প্রশ্ন হলোÑ তাদের দিয়ে কিছুই যখন হবে না, তবে কেন আয়ারল্যান্ডে উড়িয়ে নিয়ে গেল বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট? শুধু নয়নাভিরাম আয়ারল্যান্ডের নির্মল হাওয়া খেতে নিশ্চয়ই নেওয়া হয়নি! বিশ্বকাপ দলে থাকা ১৫ জনের সঙ্গে ইয়াসিরকে নেওয়া প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বেশ জোর দিয়ে বলেছিলেন, ‘মাত্র তো দল দিয়েছি, ওকে অবশ্যই খেলানো হবে। খেলানো হবে না কেন?’

নাঈমকে দলের সঙ্গে রেখে পরিচর্যা করা হচ্ছে গেল বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে। যেমনটা লম্বা সময়জুড়ে করা হয়েছে নাজমুল হোসেনকে। তাসকিন আহমেদকে নেওয়া হয়েছে স্টিভ রোডসের চাহিদা যা দেশজুড়ে তুমুল আলোচনা হওয়ায়। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে পারফরম্যান্সের পুরস্কার হিসেবে আয়ারল্যান্ড ঘুরে দেখার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে ফরহাদকে। স্কোয়াডে থাকলেই যে একাদশে নিতে হবে, এটির কোনো নিশ্চয়তা নেই। পরিস্থিতি অনুযায়ী তাৎক্ষণিকভাবে অনেক নতুন সিদ্ধান্ত হয়। আগের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে হয়। সবই ঠিক আছে। কিন্তু আয়ারল্যান্ড সফরটা যে বিশ্বকাপ প্রস্তুতির মঞ্চ, এটা তো আগ থেকেই জানা ছিল। এ প্রস্তুতিতে বিশ্বকাপের খেলোয়াড়দের আগে সুযোগ দেওয়া হবে, সেটি স্বাভাবিক। আর সেটি করতে গিয়ে পুরো সিরিজই শেষ হয়ে যেতে পারে জেনেও বিশাল লটবহর টানার অর্থ কী; সেটাই এখন ক্রিকেটপ্রেমীদের মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। তবে আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে আর্থিকভাবে বিসিবি যে অনেক শক্তিশালী ক্রিকেট বোর্ড, সেটি প্রদর্শন করতেই বুঝি অতিরিক্ত চারজনের ব্যয়ভার বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে!

 

"