প্রথম নারী ম্যাচ রেফারি পেল ক্রিকেট বিশ্ব

প্রকাশ : ১৫ মে ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

চলতি বছরের মে মাস নারী ক্রিকেটে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। মাসের শুরুতেই প্রথম নারী আম্পায়ার হিসেবে পুরুষদের ম্যাচ পরিচালনা করেন অস্ট্রেলিয়ার ক্লেয়ার পোলোস্যাক। কাল নারী ক্রিকেটের উন্নয়নে গৃহীত হলো আরেকটি বড় পদক্ষেপ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) প্রথম নারী ম্যাচ রেফারি হিসেবে নিয়োগ পেলেন ভারতের জিএস লক্ষী। ৫১তম জন্মদিনের ঠিক ৯ দিন আগে পেশাদার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে আনন্দঘন সংবাদ শুনলেন তিনি। এখন থেকে আইসিসির যেকোনো খেলায় ম্যাচ রেফারির দায়িত্ব পালন করতে পারবেন এই ম্যাচ অফিসিয়াল।

এ ব্যাপারে আইসিসির আম্পায়ার ও রেফারি বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা আদ্রিয়ান গ্রিফিথ বলেন, ‘আমরা ম্যাচ অফিসিয়ালদের মধ্যে বৈষম্য দূরীকরণে বদ্ধপরিকর। তবে সব নিয়োগই মেধার ভিত্তিতেই দেওয়া হচ্ছে।’

২০০৮-০৯ সালে ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রথমবার ম্যাচ রেফারির দায়িত্ব পেয়েছিলেন লক্ষী। এ পর্যন্ত তিনটি নারী আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ও তিনটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে দায়িত্ব পালন করেছেন লক্ষী। আইসিসির প্যানেলভুক্ত ম্যাচ রেফারি হওয়ার পর লক্ষী জানিয়েছেন, ‘আইসিসির আন্তর্জাতিক প্যানেলে নির্বাচিত হতে পারা আমার জন্য অনেক গৌরবের, কারণ এটা আরো অনেক সুযোগ সৃষ্টি করবে। ভারতে ক্রিকেটার হিসেবে অনেক লম্বা সময় পার করেছি, আম্পায়ার হিসেবেও অনেক দিন কাজ করেছি। আশা করি একজন খেলোয়াড় ও ম্যাচ অফিসিয়াল হিসেবে আমার অভিজ্ঞতা আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রেও ভালোভাবে ব্যবহার করতে পারব।’

যদিও শীর্ষ পর্যায়ে আসার পথটা সহজ ছিল না লক্ষীর। তাই সুযোগ পেয়ে এ যাত্রার সঙ্গীদের কৃতজ্ঞতা জানাতে ভোলেননি লক্ষী, ‘এত বছর ধরে আমাকে সমর্থন করার জন্য আইসিসি, বিসিসিআইয়ের কর্মকর্তা, ক্রিকেট অঙ্গনে আমার সিনিয়র, আমার পরিবার ও সহকর্মীদের ধন্যবাদ দিতে চাই। আশা করি আমার সামর্থ্যরে সবটুকু দিয়ে তাদের সবার আশা পূরণ করতে পারব।’

মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়ার এলোইস শেরিডানকেও আইসিসির আম্পায়ারদের ডেভেলপমেন্ট প্যানেলে ডেকে আনা হয়েছে। ২০১৮-১৯ বিগ ব্যাশ লিগের দুই ম্যাচে রিজার্ভ আম্পায়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করা এই আম্পায়ার প্যানেলের অষ্টম সদস্য হিসেবে যোগদান করেছেন।

 

"