চ্যাম্পিয়নস লিগ স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল রোমা

প্রকাশ : ১৪ মে ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

নতুন জার্সিতে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো-জর্জো কিয়েলিনিরা। কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্সে নেই তেমন ধার। সিরি ‘এ’ শিরোপা নিশ্চিতের পর যেন ক্লান্তি ভর করেছে জুভেন্টাসের। এবার যেন ঘুমিয়েই পড়ল তারা। টানা দুই ড্রয়ের পর রোববার এএস রোমার মাঠে হারের তিক্ত স্বাদ পেতে হলো তুরিনের বুড়িদের। শেষ মুহূর্তে জোড়া গোল হজমে লজ্জাকে সঙ্গী করে রোম থেকে ফিরতে হলো ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নদের। অন্যদিকে, ঘরের মাঠে মৌসুমের অন্যতম তাৎপর্যপূর্ণ জয়ে সামনের মৌসুমে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলার স্বপ্ন জিইয়ে রাখল রোমা।

অবশ্য ম্যাচ হারলেও এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে জুভেন্টাস। ৩৬ ম্যাচে ২৮ জয়, ৫ ড্র ও ৩ পরাজয় নিয়ে ৮৯ পয়েন্ট তাদের। দুয়ে থাকা নাপোলির থেকে ১৩ পয়েন্ট এগিয়ে তারা। ৬২ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে থেকে আটালান্টা ও দুই মিলানের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছে রোমা।

পরশু রাতে স্টাডিও অলিম্পিকোয় ম্যাচের শুরু থেকেই জুভেন্টাসের আক্রমণভাগ ছিল নড়বড়ে। একাধিকবার এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ এসেছিল লিগ চ্যাম্পিয়নদের। কিন্তু সুযোগগুলোকে কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন রোনালদো-দিবালারা। ষষ্ঠ মিনিটে দলকে এগিয়ে নেওয়ার সহজ সুযোগ পেয়েছিলেন হুয়ান কুয়াড্রাডো। বামপ্রান্ত থেকে পাওয়া বলে শট নিয়েছিলেন কলম্বিয়ান উইঙ্গার। কিন্তু রোমার গোলরক্ষক মিরান্তে হাত লাগিয়ে বল ঠেকিয়ে দেন।

১০ মিনিট বাদে বক্সের ভেতরে দিবালাকে বল বানিয়ে দিয়েছিলেন রোনালদো। বাঁ পায়ে কোনাকুনি শট নিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। কিন্তু ফের বাধা হয়ে দাঁড়ান মিরান্তে। খানিক বাদে পাল্টা আক্রমণে গোলের সুযোগ তৈরি করেছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু লোরেঞ্জো পেলেগ্রিনির শট ফিরে আসে বারপোস্টে লেগে। ২৮ মিনিটে দিবালার শট আবার ফিরিয়ে দেন রোমার শেষ প্রহরী। প্রথমার্ধের অবশিষ্ট সময়ে দুদলের কেউই আর বলার মতো আক্রমণ শানাতে পারেনি।

বিরতির পর রোমার রক্ষণদূর্গ ভেঙে জালের ঠিকানা খুঁজে পেয়েছিলেন রোনালদো। কিন্তু ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তায় অফসাইডে ধরা পড়েন রোনালদো। তাতে বাতিল হয় গোল। অতিথিদের সুযোগ নষ্টের মহড়ায় অবশেষে কাক্সিক্ষত ফল পায় স্বাগতিকরা। ৭৯ মিনিটে এডিন জেকোর বাড়ানো পাসে ফ্লিক করে বল জুভেন্টাসের জালে পাঠান আলেসসান্দ্রো ফ্লোরেন্সি। পিছিয়ে পড়ে আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি আলেগ্রির শিষ্যরা। উল্টো অতিরিক্ত সময়ে আরেক গোল হজম করে তারা। এবার নিজেই স্কোরশিটে নাম লিখিয়ে জুভদের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন জেকো।

 

"