কালো মেঘ সরে মেয়েদের লিগ শুরু

প্রকাশ : ২১ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

অনিশ্চিয়তায় ছিল বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট। নেমেছিল হতাশার অন্ধকার। দেশের নারী ক্রিকেটারদের রুটি-রুজির একমাত্র উৎস ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ হবে তো? গত দুই মাস ধরে প্রশ্নে ভারী হয়ে উঠেছিল মিরপুরের আকাশ। অবশেষে কেটেছে অনিশ্চয়তার মেঘ। দেরিতে হলেও মাঠে গড়াচ্ছে মেয়েদের লিগ। কাল সম্পন্ন হয়েছে দলবদল।

আগামী ২৩ এপ্রিল শেষ হবে ছেলেদের প্রিমিয়ার লিগ। তার দুই দিন পর ২৫ এপ্রিল থেকে শুরু হবে মেয়েদের লিগ। অংশ নেবে ১০টি দল। শুরুর দিকের ম্যাচগুলো হবে বিকেএসপির তিন মাঠে। মাশরাফি বাহিনী আয়ারল্যান্ড সফরে চলে গেলে মেয়েদের কিছু ম্যাচ হতে পারে শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। লিগের আয়োজক কমিটি ভেন্যু হিসেবে মিরপুরকে চেয়ে চিঠি দিয়েছে বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির কাছে।

মাঠ স্বল্পতার কারণে থমকে ছিল মেয়েদের চলতি মৌসুমের লিগ আয়োজন। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি ছেলেদের প্রিমিয়ার টি-টোয়েন্টি ও ৮ মার্চ থেকে প্রিমিয়ার লিগ শুরু হওয়ায় মাঠ সংকটে পিছিয়ে যায় মেয়েদের লিগ। এই বিরতিতে মার্চের শুরুতে কক্সবাজারে জাতীয় লিগে অংশ নেয় আটটি বিভাগীয় দল। সেখান থেকে বাছাইকৃত ৫২ জন ক্রিকেটারকে নিয়ে ৭ থেকে ১২ এপ্রিল রংপুরে চারটি দলের একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজন করে বিসিবি। যেখানে ছিলেন জাতীয় দলের ভারতীয় কোচিং ইউনিট।

মিরপুরের মিডিয়া সেন্টারে দলবদলে অংশ নিতে আসা বাংলাদেশ দলের অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার লতা মন্ডল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘খেলার মধ্যে থাকলেও আমাদের হেড কোচ অঞ্জু জৈন যার যে সমস্যা সেটি ধরিয়ে দিয়েছেন। যেটি আমরা ম্যাচে প্রয়োগ করার চেষ্টা করতে পেরেছি। টি-টোয়েন্টি শেষ হতেই ওয়ানডে লিগ শুরু হচ্ছে। এটা আমাদের খুব কাজে দেবে।’

মিরপুরের মিডিয়া সেন্টারে চলছে দলবদল

‘শুরুতে প্রিমিয়ার লিগে ছয় থেকে সাত দলের অংশগ্রহণ ছিল। এখন কিন্তু ১০টি টিম চলে এসেছে। তাতে আমাদের ম্যাচ বেড়েছে। আশা করি সামনে আরো দল বাড়বে। তাহলে আমাদের জন্য অনেক ভালো হবে। আমরা আর কত দিন খেলব? আমাদের পরের ব্যাচ তৈরি করার জন্য বিসিবি চেষ্টা করছে। এটা ভালো দিক। সম্ভবত মেয়েদের ‘এ ’ দল গঠন করা হচ্ছে।’

মেয়েদের ঘরোয়া ক্রিকেট চালু রাখা গেলেও আন্তর্জাতিক ব্যস্ততা নেই লম্বা সময় ধরে। ২০১৯ সালে কোনো ম্যাচ খেলারই সুযোগ পায়নি রুমানা-জাহানারা-সালমারা। ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বর ওয়েস্ট ইন্ডিজে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচটিই শেষ। পাঁচ মাস হলো ম্যাচ পায়নি টিম টাইগ্রেস। অপেক্ষা দীর্ঘ হচ্ছে আরো। জুলাইয়ে পাকিস্তান সফরে যাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু স্বাগতিকরা দ্বিপাক্ষিক সিরিজটি বাতিল করে দিয়েছে।

বিসিবির ওমেন্স উইংয়ের ইনচার্জ নাজমুল আবেদীন ফাহিম জানান, ‘পাকিস্তান সিরিজ বাতিল করায় আমরা বিকল্প একটি দেশে সফরের কথা ভাবছি। এ ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা চলছে।’

সেপ্টেম্বরে হবে স্কটল্যান্ডের ২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব। তার আগে বাংলাদেশ ‘এ’ দল যাবে দক্ষিণ আফ্রিকায়। নাজমুল আবেদীন জানান, ‘প্রিমিয়ার লিগ শেষে দীর্ঘমেয়াদি ক্যাম্প করার কথা ভাবা হচ্ছে।’

 

"