বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ

স্মরণীয় করে রাখতে চাই

প্রকাশ : ২১ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ঘরের মাঠ, চেনা দর্শকের সামনে খেলা। গ্রুপপর্বে পাওয়া দুই প্রতিপক্ষকেও বয়সভিত্তিকের অন্য পর্যায়ে বড় ব্যবধানে হারানোর অভিজ্ঞতা আছে মেয়েদের। সব মিলিয়ে বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ ইন্টারন্যাশনাল গোল্ডকাপে বাংলাদেশ অন্যতম ফেভারিট। কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনও আত্মবিশ্বাসী টুর্নামেন্টটি স্মরণীয় করে রাখার।

কাল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হবে ছয় দলের এই প্রতিযোগিতা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মা বঙ্গমাতা ফজিলাতুননেসার নাম অনুসারে প্রথমবারের মতো হওয়া এই প্রতিযোগিতার বাকি পাঁচ দল মঙ্গোলিয়া, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান, লাওস ও সংযুক্ত আরব আমিরাত।

‘এ’ গ্রুপের তিন দলের মধ্যে মঙ্গোলিয়া ও তাজিকিস্তান এরই মধ্যে চলে এসেছে ঢাকায়। লাওস দল আজ আসবে। বাংলাদেশের ‘বি’ গ্রুপের দল আরব আমিরাত চলে এসেছে। কিরগিজস্তান দলও আজ আসবে, কাল সংবাদ সম্মেলনে জানান বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ। আরব আমিরাতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে গ্রুপপর্ব শুরু করবে বাংলাদেশ। এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইয়ে তাদের তিনবার হারানোর অভিজ্ঞতা আছে বাংলাদেশের। সর্বশেষ ২০১৮ সালে দল জিতেছিল ৭-০ ব্যবধানে। ওই একই আসরে কিরগিজস্তানকে মেয়েরা উড়িয়ে দিয়েছিল ১০-০ গোলে।

গত মার্চে নেপালে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলে আসা খেলোয়াড়দের মধ্যে বয়সের কারণে কেবল সাবিনা খাতুন নেই ২০ জনের দলে। সাফ শেষে সাত দিনের বিশ্রামের পর মেয়েরা অনুশীলনের মধ্যে থাকায় আশাবাদী রব্বানী।

‘মেয়েরা ধারাবাহিকভাবে অনুশীলনের মধ্যেই আছে। ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০ মার্চের মধ্যে আমরা দুটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছি। সেই অভিজ্ঞতাগুলো এই টুর্নামেন্টে অনেক কাজে লাগবে । সেখানে আমাদের যে ভুলত্রুটিগুলো ছিল সেগুলো নিয়ে কাজ করা হয়েছে।’

আমরা গ্রুপের ম্যাচগুলোতে জিততে চাই। এরপর সেমিফাইনাল জিতে ফাইনালে খেলতে চাই। টুর্নামেন্টটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ঘরের ট্রফি ঘরেই রাখতে চাই আমরা।

আমরা প্রতি ম্যাচেই জয়ের জন্য মাঠে নামব। প্রথম ম্যাচটি অবশ্যই জয় দিয়ে শুরু করতে চাই। মাঠে খেলার ধরন দেখে কৌশল নির্ধারণ করব। মেয়েরা জয়ের জন্য প্রস্তুত আছে।

কোচের সুরে সুর মিলিয়েছেন অধিনায়ক মিশরাত জাহান মৌসুমী, ‘আমাদের ভালো প্রস্তুতি হয়েছে। দলের সবাই সুস্থ আছে। নিজেদের ঘরে ট্রফি ধরে রাখতে চাই আমরা।’

 

"