বিজয়ের শতকে হারল আবাহনী

প্রকাশ : ২৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের চলতি মৌসুমে হেসেই চলছে এনামুল হক বিজয়ের ব্যাট। কাল ফতুল্লায় লিগে টানা তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন জাতীয় দলের বাইরে থাকা এই ক্রিকেটার। বিজয়ের শতকের ওপর দাঁড়িয়ে ঢাকা আবাহনীর বিপক্ষে ১৬ রানের রোমাঞ্চকর জয় তুলে নিয়েছে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। পঞ্চম রাউন্ডের এই ম্যাচে ৩০২ রান তাড়া করতে নেমে ২৮৬ রানে থেমে গেছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। টুর্নামেন্টের চলতি আসরে এটা প্রথম হার আবাহনীর। অন্যদিকে এ নিয়ে পাঁচ ম্যাচের চারটিতেই জিতল সাবেক চ্যাম্পিয়নরা।

কাল খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে জাকির হাসানের সঙ্গে ৫০ রানের উদ্বোধনী জুটিতে প্রাইম ব্যাংককে ভালো শুরু এনে দেন এনামুল। দ্বিতীয় উইকেটে ঈশ্বরণের সঙ্গে ১৫৪ রানের জুটিতে দলকে দাঁড় করান দৃঢ় ভিতের ওপর। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ঈশ্বরণকে এলবিডব্লিউ করে বিদায় করেন সানজামুল ইসলাম। ভারতীয় টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানের ৯৬ বলে খেলা ৮৫ রানের ইনিংস গড়া চারটি চার ও দুই ছক্কায়।

মোহাম্মদ আশরাফুলের পর দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রিমিয়ার লিগে টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি করলেন এনামুল। নাজমুল ইসলামের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরা এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানের ১২৮ বলে খেলা ১০২ রানের ইনিংস গড়া পাঁচ চার ও দুই ছক্কায়। ইনিংসের শেষ দিকে ঝড় তোলেন আরিফুল। ২৭ বলে ৭ চারে অপরাজিত ৫১ রানের বিধ্বংসী ইনিংসের সুবাদে দলীয় সংগ্রহ তিন শ ছাড়ায় প্রাইম ব্যাংক।

বড় লক্ষ্য তাড়ায় শূন্য রানে ফেরেন জহুরুল ইসলাম। ভারতীয় ওপেনার জাফরের সঙ্গে ৬২ রানের জুটি গড়া সৌম্য সরকার ফেরেন ৩৩ বলে ৩৬ রান করে। তৃতীয় উইকেটে শান্তর সঙ্গে ১৩২ রানের জুটিতে দলকে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান জাফর। অফ স্পিনার আল আমিন জুনিয়রকে ছক্কায় ওড়ানোর পরের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান এই ওপেনার। ভাঙে বিপজ্জনক হয়ে ওঠা জুটি। জাফরের ৯১ বলে ৯৪ রানের ইনিংস গড়া নয়টি চার ও একটি ছক্কায়। আল আমিন জুনিয়রকে ছক্কা হাঁকানোর এক বল পর ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান শান্তও। দুই থিতু হওয়া ব্যাটসম্যানের মাঝে এই অফ স্পিনারের বলে ফেরেন মোহাম্মদ মিঠুনও।

দ্রুত তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া আবাহনীকে এরপর প্রায় একাই টানেন মোসাদ্দেক। অধিনায়ককে সহায়তা দিতে পারেননি কেউই। সাব্বির রহমান ১৮ বলে ফেরেন ১০ রান করে। পরের চার ব্যাটসম্যানের কেউ যেতে পারেননি দুই অঙ্কে। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ৫২ রান করেন মোসাদ্দেক। এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডারের ৪৭ বলে খেলা ৫২ রানের ইনিংস গড়া তিনটি চার ও একটি ছক্কায়। প্রাইম ব্যাংকের পক্ষে আল আমিন জুনিয়র, আবদুর রাজ্জাক ও নাহিদুল ইসলাম নেন তিনটি করে উইকেট। তবে ম্যাচসেরা হয়েছেন বিজয়।

কাল ঢাকা লিগে সেঞ্চুরি হয়েছে আরো দুটি। বিজয়ের সঙ্গী হয়েছেন মেহেদি মারুফ ও জাকের আলী। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে ২৭ রানে দুই উইকেট হারানোর পরও এই দুজনের ব্যাটিং দৃঢ়তায় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের ছুড়ে দেওয়া ২৫১ রানের লক্ষ্যমাত্রায় অনায়েসেই পৌঁছে যায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। তৃতীয় উইকেট জুটিতে মেহেদি-জাকের যোগ করেন দুইশোর্ধ্ব রান। রূপগঞ্জ জিতেছে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে।

তবে জমে উঠেছিল সাভারের ম্যাচটা। যেখানে শেষ বলে ছক্কা মেরে শেখ জামালকে জিতিয়েছেন এনামুল হক। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে নাটকীয় ম্যাচে ধানমন্ডির ক্লাবটি জিতেছে ২ উইকেটে। আগে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের ৫ বল বাকি থাকতে ২৪০ রানে গুটিয়ে গেছে মতিঝিলের ক্লাব মোহামেডান। জবাব দিতে নেমে অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে জয় তুলে নেয় শেখ জামাল (২৪২/৮)। শেষ ওভারে ১২ রানের কঠিন সমীকরণ মিলিয়ে ফেলে তারা।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর

 

মোহামেডান-শেখ জামাল

মোহামেডান : ৪৯.১ ওভার, ২৪০ (শুক্কুর ১৭, মজিদ ৫২, আশরাফুল ৪৪, ডি সিলভা ৪৯, সোহাগ ৩২; নাসির ১/৩২, তাইজুল ১/৫২, গুনারতেœ ২/৫২, তানবীর ১/২১, শাকিল ৩/৪১, এনামুল ১/১৪)

শেখ জামাল : ৫০ ওভার, ২৪২/৮ (ইমতিয়াজ ৭৪, তানবীর ৩৯, নাসির ২৫, গুনারতেœ ২০, সোহান ৩২, এনামুল ২৮*; ডি সিলভা ২/৩৬, সোহাগ ৩/৪৩, নিহাদ ১/৪৯, আশরাফুল ১/৩২)

ফল : শেখ জামাল ২ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা : ইমতিয়াজ হোসেন

 

গাজী গ্রুপ-লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ

গাজী গ্রুপ : ৫০ ওভার, ২৫০/৯

(ইমরুল ৪৮, রনি ২৯, রসুল ৮৬, মাইশুকুর ৩১, তারেক ১৯; শহীদ ১/৫০,

ধাওয়ান ১/৩৯, মুক্তার ২/৫৪,

নাঈম ১/৩৪, মিজানুর ১/৪০)

রূপগঞ্জ : ৪৫.৩ ওভার, ২৫৩/২ (মারুফ ১৩৭*, জাকের ১০৭*; রুহেল ১/৪৬, আবু হায়দার ১/৪১, রাব্বি ০/৫৯,)

ফল : রূপগঞ্জ ৮ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা : মেহেদী মারুফ

 

প্রাইম ব্যাংক-আবাহনী

প্রাইম ব্যাংক : ৫০ ওভার, ৩০২/৫ (এনামুল ১০২, ঈশ্বরণ ৮৫, আরিফুল ৫১*; মাশরাফি ০/৫৬, রুবেল ১/৫৬, মোসাদ্দেক ১/৯, অপু ১/৫০, সৌম্য ১/৪১, সানজামুল ১/৫৮)

আবাহনী : ৪৮.৫ ওভার, ২৮৬ (সৌম্য ৩৬, জাফর ৯৪, শান্ত ৭৩, মোসাদ্দেক ৫২, মাশরাফি ০; মোহর ১/২৩, নাহিদুল ৩/৫৬, রাজ্জাক ৩/৫৭, আল আমিন জুনিয়র ৩/৪৫)

ফল: প্রাইম ব্যাংক ১৬ রানে জয়ী

ম্যাচসেরা : এনামুল হক বিজয়

 

"