ঘটনার পর বাংলাদেশ দল...

প্রকাশ : ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

তামিম ইকবাল, ওপেনার :

‘বন্দুকধারীদের গুলি থেকে বেঁচে গেছে গোটা দল। ভীতিকর অভিজ্ঞতা, আমাদের জন্য প্রার্থনা করুন।’

মুশফিকুর রহিম : ‘আলহামদুলিল্লাহ, ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে গুলি থেকে আল্লাহ আমাদের বাঁচিয়েছেন...আমরা ভীষণ ভাগ্যবান...আর কখনো এমন কিছু দেখতে চাই না। আমাদের জন্য দোয়া করুন।’

মারিও ভিল্লাভারায়েন, বাংলাদেশ ট্রেনার :

ঘটনার পর একজনের (দলের খেলোয়াড়) সঙ্গে কথা বলেছি। সে কিছু না দেখলেও গুলির শব্দ শুনেছে। কোচিং স্টাফ হোটেলে অবস্থান করছে। গুলির শব্দ শুনেই খেলোয়াড়রা দৌড়ে ফিরে আসে।

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড :

ক্রাইস্টচার্চে ভয়াবহ ঘটনায় আক্রান্তদের প্রতি আমরা হৃদয় নিংড়ানো সমবেদনা জানাচ্ছি। দুই দেশের বোর্ডের যৌথ সিদ্ধান্তে হ্যাগলি ওভাল টেস্ট বাতিল করা হয়েছে। দুই দল এখন নিরাপদে।

সাকিব আল হাসান, বাংলাদেশ টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক :

ক্রাইস্টচার্চের সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে আমার কিছু বলার নেই। শুধু এটাই বলতে পারি, মহান আল্লাহপাকের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। তিনি আমার ভাই ও সতীর্থদের বাঁচিয়ে দিয়েছেন আজকে। আলহামদুলিল্লাহ।

খালেদ মাসুদ পাইলট : আমরা খুবই সৌভাগ্যবান, আমরা বাসে ১৭ জনের মতো ছিলাম। দুজন ক্রিকেটার শুধু হোটেলে ছিল, বাকি সবাই নামাজ পড়তে যাচ্ছিলাম। মসজিদ থেকে খুব বেশি হলে ৫০ গজের মতো দূরে ছিলাম। খুবই ভাগ্য ভালো যে, ৩-৪ মিনিট আগে চলে এলেও হয়তো মসজিদের ভেতরে থাকতাম। বিশাল ভয়ানক ঘটনা ঘটে যেতে পারত। শুকরিয়া আদায় করব যে আমরা ওই জায়গায় ছিলাম না।

 

"