বিশ্বজুড়ে শোক নিন্দার ঝড়

মজসিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা

প্রকাশ : ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

বিশ্বের যে কয়েকটি শান্তির দেশ আছে তার মধ্যে একটি নিউজিল্যান্ড। রাগবির দেশটা ছবির মতো যেমন সুন্দর তেমনি সেখানকার মানুষগুলোও খুব বন্ধুত্বপূর্ণ। অথচ সেই শান্তির দেশেই কাল ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটল। ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে অস্ত্রধারীর গুলিতে প্রাণ গেছে অর্ধশতকেরও বেশি নিরীহ মানুষের। নিহতের তালিকায় থাকতে পারত বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সদস্যরাও। এই ঘটনায় রীতিমতো ধাক্কা খেয়েছে গোটা বিশ্ব। বিশ্বজুড়ে চলছে এখন মাতম, চলছে নিন্দার ঝড়।

সৌভাগ্যবশত অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন মাহমুদউল্লাহ, মুশফিক ও তামিমরা। ক্রাইস্টচার্চের যে মসজিদে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা জুমার নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন সেখানে পৌঁছানোর আগেই শুরু হয়ে গেছে সন্ত্রাসী হামলা। মসজিদ থেকে মাত্র ৫০ গজ দূরে টিম বাস এসে যখন থামল তখন রক্তাক্ত অজ্ঞাত এক নারীর কাছে হামলার ঘটনা শোনেন দলের ক্রিকেটাররা। আর ৪ থেকে ৫ মিনিট আগে এলে হয়তো হামলার শিকার হতে পারতেন মাহমুদউল্লাহর দলও। ভাগ্যিস সংবাদ সম্মেলন দেরিতে শেষ করেছিলেন টাইগার দলপতি মাহমুদউল্লাহ! নাহলে যে নির্ধারিত সময় দুপুর দেড়টা বাজে (স্থানীয় সময়) দলের প্রায় সবাই ‘আল নূর’ মসজিদেই উপস্থিত থাকতেন। পুরো দলের শুধু দুজন তখন হোটেলে ছিলেন।

জীবন যেখানে মুখ্য ক্রিকেট সেখানে গৌণ একটা ব্যাপার। অবধারিতভাবেই তৃতীয় ও শেষ টেস্টটি বাতিল করা হয়েছে। কাল হামলার পরপরই নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘ক্রাইস্টচার্চে ভয়াবহ ঘটনায় আক্রান্তদের প্রতি আমরা হৃদয় নিংড়ানো সমবেদনা জানাচ্ছি। দুই দেশের বোর্ডের যৌথ সিদ্ধান্তে হ্যাগলি ওভাল টেস্ট বাতিল করা হয়েছে। দুই দল এখন নিরাপদে।’

আসলে হামলার আশপাশে ছিল শুধু বাংলাদেশ ক্রিকেট দলই। ভয়াবহ এই ঘটনার পর বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নিরাপদে আছে জেনে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গনের অনেকেই। খেলোয়াড়দের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা যায়, প্রত্যেকেই নিরাপদে আছেন। ভয়াবহ এই ঘটনায় আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া ক্রীড়াঙ্গনের বেশকিছু তারকা সমবেদনা ও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশ সময় আজ শনিবার ভোর ৪টা থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল তৃতীয় তথা শেষ টেস্টটি। দুই দেশের বোর্ডের আলোচনা থেকে টেস্ট বাতিলের সিদ্ধান্ত এসেছে। তাতে সমর্থন জানিয়েছে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা আইসিসি। হামলার নিন্দা জানিয়ে ম্যাচ বাতিলের এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করে কাল আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসন আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলেন, ‘ক্রাইস্টচার্চে ভয়াবহ হামলায় যেসব পরিবার ক্ষয়-ক্ষতির শিকার হয়েছে তাদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। দুই দল, স্টাফ ও ম্যাচ অফিসিয়ালরা নিরাপদে আছেন। টেস্ট ম্যাচ বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতি পূর্ণ সমর্থন রয়েছে আইসিসির।’

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার জিমি নিশাম টুইট করে বলেছেন, ‘অনেক দিন থেকেই নানা ঘটনা দূর থেকে দেখে ভেবেছি, বিশ্বের এই কোণে আমরা একটু আলাদা, একটু নিরাপদ। আজকের (শুক্রবার) দিনটা ভয়াবহ, ভীতিকর এবং দুঃখজনক।’ নিউজিল্যান্ড রাগবির মুসলিম তারকা খেলোয়াড় সনি বিল উইলিয়ামস টুইটারে এক ভিডিওবার্তায় বলেছেন, ‘খবরটা শুনে ভাষাহীন হয়ে পড়েছি। শুনেছি প্রায় ৩০ জনের মতো নিহত হয়েছে। হতাহতের পরিবারের প্রতি দোয়া রইল। ইনশাআল্লাহ তোমরা সবাই স্বর্গে থাকবে এবং খুব দুঃখ লাগছে যে এটি নিউজিল্যান্ডে ঘটল।’

এই ঘটনায় শ্রীলঙ্কার তারকা অলরাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস টুইট করেছেন, ‘নিউজিল্যান্ডে হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে স্তব্ধ হয়ে পড়েছি। হতাহতের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নিরাপদে আছে জেনে স্বস্তি লাগছে।’ মাইকেল ভনের টুইট করে বলেছেন, ‘কেন? কেন? আবারও নিরাপরাধ মানুষের ওপর ন্যক্কারজনক হামলা। নিউজিল্যান্ডে হামলায় আক্রান্ত সব মানুষের প্রতি আমার সমবেদনা।’

এই হামলার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ও দেশটির সাবেক ক্রিকেট অধিনায়ক ইমরান খান বলেছেন, ‘নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে যা ঘটেছে তার তীব্র নিন্দা জানাই। এটা আরেকবার প্রমাণ করল যা আমরা সারাজীবন বলে এসেছি, সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম নেই। আক্রান্তদের পরিবারের জন্য সহমর্মিতা।’

টুইটারে নিজের মতামত প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এনবিএ তে পোর্টল্যান্ড ট্রেইল ব্রেজার্সের হয়ে খেলা তুর্কি বাস্কেটবল তারকা এনেস কান্তার, ‘নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা শুনে আমি স্তম্ভিত। বর্বরোচিত এই হামলার ঘটনায় যারা আক্রান্ত হয়েছে তাদের প্রতি আমার সহমর্মিতা। শক্ত থাকুন। এ ধরনের হামলা নিন্দনীয় ও ক্ষমার অযোগ্য।’ বিশ্বসেরা রেসলিং কোম্পানি ডব্লিউডব্লিউ-এর রেসলার মুস্তাফা আলিও টুইট করেছেন, ‘ঘৃণা যে কী কী করতে পারে, ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলার মাধ্যমে সেটা আরেকবার প্রমাণিত হলো। ঘৃণা ছড়ানো বন্ধ করুন।’

নিউজিল্যান্ডে এই হামলার ঘটনা হয়েছে, মানতেই পারছেন না শহীদ আফ্রিদি, বিরাট কোহলি, শোয়েব আখতার, মিচেল ম্যাকক্লেনাঘান, ভিভিএস লক্ষ্মণসহ অনেক নামি-দামি ক্রিকেটাররা। নিহতদের পরিবারকে সান্ত¡না দিয়েছেন তারা। একইসঙ্গে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন তারা। এই ঘটনার পর নিউজিল্যান্ডের খেলাধুলা আয়োজনের কাঠামোই পাল্টে যাবে বলে মনে করেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের প্রধান ডেভিড হোয়াইট।

 

"