শর্ত দিয়ে ফিরলেন জিদান

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

হারতে হারতে ক্লান্ত রিয়াল মাদ্রিদ জয়ে ফিরেছে প্রতিপক্ষের মাঠে। রায়ো ভায়েকানোকে ৪-১ গোলে হারিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। এই জয়টা লস ব্লাঙ্কোস শিবিরে একটা প্রশান্তির বাতাস এনে দিয়েছিল মাদ্রিদ জায়ান্টদের। তাতে ড্রেসিংরুমে স্বস্তি ফিরলেও, চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলেন প্রধান কোচ সান্তিয়াগো সোলারি। নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চয়তার কথা শুনিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন কোচ। এর একদিনও পার হয়নি। সেদিনই তাকে বরখাস্ত করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। তাকে সরিয়ে সাবেক কোচ জিনেদিন জিদানকে ফিরিয়ে এনে স্প্যানিশ লিগ ও উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসের সবচেয়ে সফল দলটি।

প্রায় ১০ মাস আগে এই জিদানের অধীনেই ইতিহাস গড়েছিল ইউরোপের মঞ্চে। তার দুর্দান্ত রণকৌশলের সুবাদে প্রথম ও একমাত্র দল হিসেবে ইউরোপের সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতায় টানা তিন আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। ট্রফি জয়ের রেশটা শেষ না হতেই প্রদান কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন ফ্রেঞ্চম্যান। কিন্তু নির্বাসনে বেশিদিন থাকা হলো না ক্লাবের এই কিংবদন্তি ফুটবলার। সোলারিকে বিদায় করে আবারও সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে প্রধান কোচ বানিয়ে জিজুকে নিয়ে এসেছেন ক্লাবকর্তারা।

গত সোমবার রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে নতুন চুক্তি করেছেন জিদান। চুক্তি অনুযায়ী দ্বিতীয় মেয়াদে ২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত মাদ্রিদ জায়ান্টদের প্রধান কোচ হিসেবে কাজ করবেন কিংবদন্তি এই কোচ। পরশু রাতে নিজেদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এক বিবৃতিতে জিজুকে নতুন করে কোচ করার খবরটা নিশ্চিত করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। মাদ্রিদের ক্লাবটির হয়ে প্রথম দফায় আড়াই বছরের অধ্যায়ে রিয়ালকে ৯টি শিরোপা জিতিয়েছিলেন ফরাসি কোচ। ঈর্ষণীয় এই সাফল্যের পুরস্কার নতুন করে পেলেন ৪৬ বছর বয়সি এই কোচ।

গত সোমবার প্রধান কোচের পদ থেকে চাকরিচ্যুত হন আর্জেন্টাইন কোচ। স্বপ্নের ক্লাবের প্রধান কোচের ভূমিকায় পাঁচ মাসও থাকতে পারলেন না সোলারি। অবশ্য সরিয়ে দিলেও আর্জেন্টাইন কোচের সঙ্গে সম্পর্কের ইতি টানছেন না ক্লাবের নীতি-নির্ধারকরা। সোলারিকে ক্লাবের অন্য একটা পদে বসানো হচ্ছে। মৌসুমের শুরুর দিকে জিদানের উত্তরসূরি হিসেবে হুলেন লোপেতেগুইকে নিয়োগ দেয় রিয়াল। ক্লাবের টানা ব্যর্থতায় লাল কার্ড দেখেন স্প্যানিশ কোচ। পরে সোলারির অধীনে রিয়াল সাময়িক বিপর্যয় সামাল দিলেও মহাবিপর্যয় আর কাটিয়ে ওঠতে পারেননি।

সোলারির পরিবর্তিত হিসেবে রিয়ালের নতুন কোচ কে হচ্ছেন তা নিয়ে জল্পনা-কল্পনার শেষ ছিল না। সাবেক প্রধান কোচ হোসে মরিনহোকে ফিরিয়ে আনার কথাও শোনা যাচ্ছিল স্প্যানিশ মিডিয়ায়। ইংলিশ মিডিয়ার খবর টটেনহামের আরেক আর্জেন্টাইন কোচ মাওরিসিও পচেত্তিনোও কোচ হওয়ার দৌড়ে বেশ এগিয়ে ছিলেন। সম্প্রতি রিয়ালের কোচ হওয়ার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন তিনি। কিন্তু শেষাবধি জিদানের ওপর আস্থা রাখল রিয়াল।

অবশ্য পুরোনো ঠিকানায় ফিরলেও রিয়ালকে কয়েকটা শর্ত দিয়েছেন জিদান। স্প্যানিশ মিডিয়ার দাবি জিজুর ছয় শর্তে ফিরে এসেছেন ফ্রেঞ্চ কোচ। শর্তগুলো হচ্ছে- দলের ওপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রাপ্তি। খেলোয়াড় বিক্রি করার স্বাধীনতা। মার্সেলো এবং ইস্কোকে ধরে রাখতে হবে। নেইমারকে রিয়াল মাদ্রিদে আনা যাবে না। হ্যামেস রদ্রিগেজকে বায়ার্ন মিউনিখ থেকে ফিরিয়ে আনা যাবে না। কিলিয়ান এমবাপ্পেকে দলে টানার সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে। এখন প্রশ্ন হচ্ছেÑ এই কয়টা শর্তের কয়টা মানবে রিয়াল মাদ্রিদ?

 

"